ভোলাহাটের ঘরের ছেলে নাঈম অনূর্ধ্ব- ১৭ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক

ভোলাহাট (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল চরধরমপুর গ্রামের একজন ৪র্থ শ্রেনির কর্মচারী আব্দুল লতিফের ছোট ছেলে নাঈম আহমেদ এখন অনূর্ধ্ব- ১৭ ক্রিকেট দলের অধিনায়কের দায়িত্বে। মা-বাবা বলার ছেলে নাঈম বাম হাতের ব্যাটসম্যান। সে খুব ছোট। একা একা ৮/১০দিন ঘুরে ফিরে কাঠমিস্ত্রীকে হাজারো অনুরোধ করে একটি ক্রিকেট খেলার সাদৃশ্য বল তৈরী করে নিয়ে মা-বাবাকে দেখায়। বাবা আব্দুল লতিফ রহনপুর এবি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনির কর্মচারি। মা আমেনা বেগম একজন গৃহিণী। নাঈমের এমন আকাংখায় কিছুটা ক্ষিপ্ত হলেও নিরুৎসাহীত করেননি ছোট ছেলে নাঈমকে। মা- বাবা ও নাঈম মিলে ক্রিকেট টিম তৈরী করে পাশের আম বাগানে ক্রিকেট খেলার যাত্রা শুরু হলো। বলার মা আমেনা বেগম ও বাবা আব্দুল লতিফ ব্যাটস ম্যান ছোট ছেলে নাঈম। নাঈম বাম হাতে ব্যাটস করতো এ সব কথা ভোলাহাট সংবাদকে জানালেন, নাঈমের বাবা আব্দুল লতিফ । নাঈমের বাবা চাকুরির সুবাদে ভোলাহাটের বাইরেই বেশী সময় পার করেছেন।নাঈমের বাবার তিন সন্তানের মধ্যে ২ ছেলে ১ মেয়ে। নাঈম বাংলাদেশ ক্রিকেট অনুর্ধ্ব-১৭ অধিনায়ক সবার ছোট। নাঈমের বাংলাদেশ ক্রিকেট অনুর্ধ্ব-১৭’র অধিনায়ক হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী পাকিস্তনিদের বিরুদ্ধে অধিনায়ক হয়ে লড়াই করতে যাওয়ায় সে যাতে তার নেতৃত্বে বিজয়ের মালা ছিনিয়ে আনতে পারে এমন প্রত্যাশা করেছেন ভোলাবাসি। এদিকে ভোলাহাট উপজেলার বিভিন্নমহলের অভিনন্দন ও ধন্যবাদের ঝড় উঠলেও জানে নাঈম জাতির মুখ উজ্জল করতে জাতির একজন নামি-নাদি সন্তানের জায়গা দখল করে ফেলেছেন। ভোলাহাট সংবাদ, ভোলাহাট চিত্র, ভোলাহাট প্রেসক্লাব পরিবার, ভোলাহাট পল্লী বিদ্যুৎ সাব-জোনাল অফিসের এজিএম রুহুল আমিনসহ তার পরিবারের কর্মচারীগণ, চরধরমপুর তরুণ সংঘ পরিবারসহ সকলমহল ভোলাহাটের গৌরব ভোলাহাটের অলংকার ভোলাহাটের ঘরের ছেলে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল অনুর্ব্ধ-১৭ অধিনায়ক নাঈম আহমেদকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। বয়সভিত্তিক বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট অনূর্ধ্ব-১৭’র অধিনায়ক নাঈম আহমেদের জীবনের প্রথম বিদেশ সফর তাও আবার অধিনায়ক একটি জাতীয় ক্রিকেট দলের নেতা হয়ে তাই তার আনন্দ অনেক । ছোট থেকে নাঈমের স্বপ্ন একজন ভালো ক্রিকেটার হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলা । তাই বাবা মা’র হাত ধরে শুরু হয় নাঈমের ক্রিকেট খেলার পথচলা। তার দুই ছেলে এক মেয়ে সহ পাঁচ জন সদস্যের টানাপড়েনের একটি সুখি পরিবার। নাঈমের বাবা ভোলাহাট সংবাদকে জানান, ছোট বেলা থেকে রহনপুর আম বাগানে কাঠের বলে বাবা মা বল করত আর নাঈম বাম হাতে ওপেনার ব্যাট করতো। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাতে প্রায় তিন বছর পূর্বে ক্রিকেটে নাঈম প্রথম স্থান অধিকার করে।পরে বি.কে.এস.পি’তে ২০১৭ সালে ভর্তি হয়ে ৮/৯ শ্রেনিতে অধ্যয়ন অবস্থায় যোগ্য ক্রিকেটার হিসেবে অনূর্ধ্ব-১৭ অধিনায়কের দায়িত্ব পায় নাঈম। নাঈমের বাবা আব্দুল লতিফ ও মা আমেনা বেগম তাদের প্রতিক্রিয়ায় জানান, তাদের ভাঙ্গা ঘরে চাঁন্দের আলো প্রবেশ করবে কখনো চিন্তায় করিনি। ভোলাহাট সংবাদকে বলেন, ৭১রে যেমন পাকিস্তানের কাছ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে তেমনি বীরদর্পে বিজয় ছিনিয়ে নিয়ে আসবে আমার নাঈমের দল। তিনি ও তার পরিবারের সকলে নাঈমকে এই অবস্থায় দেখতে পেয়ে ভীষণ খুশি ও আনন্দিত। তারা জাতির কাছে নাঈমের দলের জন্য দোয়া কামনা করেছেন। ২১অক্টোবর সোমবার নাঈমের দল অনূর্ধ্ব- ১৭ বাংলাদেশ থেকে সন্ধ্যা ৭: ৪০মিনিটের বিমানে পাকিস্তানে খেলার উেেদ্দশ্যে নাঈম তার ক্রিকেট দলকে নিয়ে উড়াল দেয়। সাম্প্রতিক পাকিস্তান সফর করেছে টিম শ্রীলঙ্কা। তবে পাকিস্তানে থাকা বাংলাদেশের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক দল বয়সভিত্তিক এই দলকে পাঠাতে দিয়েছে সবুজ সংকেত। পাকিস্তান সফরকে সামনে রেখে গত কয়েক দিন থেকে জোর প্রস্তুতি চলছে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একাডেমী মাঠে। অনুশীলন করেছেন কিশোররা। তবে সোমবার দুপুরের পর থেকেই শুরু হয় ব্যাগ গোছানো পর্ব। দলের সঙ্গে প্রধান কোচ হিসেবে যাচ্ছেন মিজানুর রহমান বাবুল। তার সহকারী হিসেবে থাকবেন জাতীয় দলের সাবেক ওপেনার মেহরাব হোসেন অপি। পাকিস্তানে দুইটি তিন দিনের টেস্ট ম্যাচ ও তিনটি একদিনের ম্যাচ খেলার কথা রয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৭ দলের। পাকিস্তানে পৌঁছে দেশটির কন্ডিশনে মানিয়ে নেয়ার জন্য দুই দিন সময় পাবে বাংলাদেশের ক্রিকেটারা । তিন দিনের ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে এ সিরিজ। প্রথম ম্যাচটি শুরু হবে ২৫ অক্টোবর থেকে ৩০ অক্টোবর দ্বিতীয় ম্যাচ ওয়ানডে ম্যাচ তিনটি হবে ৪, ৬ ও ৮ নভেম্বর। সব ঠিক থাকলে নারী দলও যাচ্ছে ২৩ অক্টোবর। তবে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করেই দলগুলো দেশে নিচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *