আজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪০ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ॥ অধ্যাপক দিলরুবা শারমীনের পক্ষ থেকে মানবতার জননী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু ও মঙ্গল কামনা


মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ ১৭ মে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রথম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নির্মমভাবে স্বপরিবারে হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। সে সময়ে তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় ঘাতকের হাত থেকে রক্ষা পান। ৭৫ পরবর্তী সময়ে বিদেশের মাটিতে দুই বোন মানবেতর জীবন যাপন করলেও তদানিন্তন অবৈধ শাষকদের বিরোধীতা/অসহযোগিতায় দেশে ফিরতে পারছিলেন না। ১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারীতে অনুষ্ঠিত দলের কাউন্সিলে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতে তাকে দলের সভানেত্রী নির্বাচিত করা হয়। পরবর্তীতে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ও মধ্যস্থতায় ১৯৮১ সালের ১৭ মে দীর্ঘ দিনের নির্বাসন শেষে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। ঐ দিন প্রচন্ড ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে কুর্মিটোলা বিমান বন্দর থেকে শেরে বাংলা নগর পর্যন্ত লাখো জনতার ঢল নেমেছিলো। ব্যাপক ঝড় বৃষ্টি লাখ লাখ মানুষের গতিরোধ করতে পারেনি। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত সেদিন ঢাকা শহর মিছিলে স্লোগানে মুখরিত ছিলো। শেখ হাসিনাকে বিমান বন্দরে স্বাগত জানানোর জন্য উপস্থিত প্রায় ১৫ লাখ মানুষের হৃদয় ছোয়া ভালবাসার জবাবে সেদিন উনি বলেছিলেন, ” বাংলার মানুষের পাশে থেকে মুক্তির সংগ্রামে অংশ নেয়ার জন্য আমি দেশে এসেছি। আমি আওয়ামীলীগের নেত্রী হওয়ার জন্য আসিনি। আপনাদের বোন হিসাবে, মেয়ে হিসাবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বিশ্বাসী আওয়ামীলীগের কর্মি হিসাবে আমি আপনাদের পাশে থাকতে চাই”। গত ৩৯ বৎসরে রাজনীতির গুনগত পরিবর্তন সহ দেশের উন্নয়নে বিশাল ভুমিকা রেখে বাংলাদেশকে এক অনন্য পর্যায়ে পৌছে দিয়েছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। ময়মনসিংহ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি, বঙ্গবন্ধু শিশু একাডেমী ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি, বাংলার মুখ ময়মনসিংহ জেলার সদস্য সচিব, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব অধ্যাপক দিলরুবা শারমীন এর পক্ষ থেকে স্বদেশ প্রত্যার্পন দিবসে মানবতার জননী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু ও মঙ্গল কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *