উলিপুরে কৃষিতে ক্ষতি সাড়ে ৬ কোটি   বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ঘুড়ে দাড়ানোর চেষ্ঠা  

মমিনুল ইসলাম বাবু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামে পরপর তিনদফা বন্যায় উলিপুর উপজেলার কৃষিতে প্রায়  ৬কোটি ৬০ লক্ষ টাকা  ক্ষতি হয়েছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ঘুড়ে দাড়ানোর চেষ্ঠায় কৃষক-কৃষানী মাঠে আমন ধান চাষে ব্যস্ত সময় পার করছে এখন। সরকারি প্রণোদনায় বীজতলার চারা বিনামূল্যে পেয়ে নতুন উদ্যোমে মাঠে নেমেছে কৃষকরা। দুর দুড়ান্ত থেকে আমন ধানের চারা ক্রয় করে  এনে  চারা রোপন করছে উপজেলার চাষীরা।
উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, এবারে বন্যায় উপজেলায় কৃষিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে । আমন বীজতলা ২শ ৬৫হেক্টর, পাট চাষে ২০০ হেক্টর, আউশ ১শ ১৫হেক্টর এবং সবজীবাগান ৮৫ হেক্টর  জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। যার ক্ষতির পরিমান প্রায়  ৬কোটি ৬০ লক্ষ টাকা । ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের সংখ্যা প্রায় ৩১হাজার ১শ ৫০জন। দীর্ঘস্থায়ী বন্যার ধকল কাটাতে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ উপজেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের জন্য কমিউনিটি বীজতলা তৈরী করেছে ১৪ একর জমিতে। প্রতি একরের বীজতলার চারা ১৫-১৬ একর জমিতে লাগানো যাবে। যার মাধ্যমে ৯২৪ জন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক বিনামূল্যে ২১০একর জমিতে আমন চাষ করার সুযোগ পাবে।  এরই মধ্যে তবকপুর ইউনিয়নে এক একর জমির বীজতলার চারা কৃষকের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে । ৫-৭দিনের মধ্যে বাকী বীজতলার চারা বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বিশ্বনাথ মজুমদার।
উপজেলায় এবারে আমন ধান চাষের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ২৩ হাজার ৪শ ৬৫ হেক্টর, এখন পর্যন্ত অর্জিত হয়েছে ১৯হাজার ৩শ ৩৫ হেক্টর।
উপজেলা কৃষি অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম জানান, আমন আবাদ যাতে বিঘ্নিত না হয় এজন্য বন্যা পরবর্তী কৃষি পূনর্বাসন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। চলতি বছর উপজেলায় আমন চারার ঘাটতি মোকাবেলায় ১৪টি কমিউনিটি বীজতলা তৈরী করা হয়েছে। যা বিনামূল্যে কৃষকের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে। এরফলে বীজতলার ঘাটতি পুরণ করতে পারবে কৃষক । উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ সর্বদা মাঠে গিয়ে কৃষকদেরকে কৃষি পরার্মশ দিয়ে আসছে।
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *