বাকেরগঞ্জে মা ইলিশ রক্ষারতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি/উত্তম দাস

এ বছর প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষার অভিযানে বরিশাল জেলায় বাকেরগঞ্জ এগিয়ে আছে বাকেরগঞ্জ উপজেলা। গত ১৪ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া নিষিদ্ধ সময়ে মাছ ধরার অপরাধে বরিশাল সদর উপজেলা, বাকেরগঞ্জ, হিজলা, মুলাদী, উজিরপুর, বানারীপাড়া, বাবুগঞ্জ মেহেন্দিগঞ্জসহ ১০টি উপজেলার বিভিন্ন নদীতে অভিযান চলিয়ে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ৩৯৭ জেলেকে আটক করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন, কোস্টগার্ড, পুলিশ প্রশাসন, ভ্রাম্যমাণ আদালত ও জেলা মৎস্য বিভাগ এ অভিযান পরিচালনা করেন। বরিশাল জেলায় বুধবার রাত ৮টা পর্য মোট ২১৬টি অভিযান ও ১১৯টি অভিযান চালিয়ে মাছ শিকারের অপরাধে মোট ৩৯৪ জন জেলেকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা মৎস কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান।

তথ্যমতে, গত ১৪ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া ইলিশ রক্ষার অভিযানে বরিশাল জেলার মোট ১০ উপজেলার মধ্যে বাকেরগঞ্জ এগিয়ে রয়েছে। বাকেরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, ১৪ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন ৩টি অভিযান এবং ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয় প্রতিদিন কমপক্ষে ২ বার। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাকিব হাসান জানান, ১৪ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত মোট ২২ দিনে ৪৮০টি অভিযান এবং ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়েছে ৩৫ বার। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা এবং রাত ৮টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত প্রতিদিন গড়ে ৪ বার অভিযান পরিচালনা করা হয়।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাকিব হাসান আরও জানান, উপজেলার পান্ডব, তুলাতলা, তেঁতুলিয়া এবং কারখানা নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান পরিচালনা করে ১৫ লাখ মিটার জাল জব্দ করা হয়েছে। এছাড়া ৪টি ট্রলার এবং ৩০০ কেজি মাছ জব্দ করা হয়। জব্দ করা মাছ স্থানীয় ইয়াতিমখানায় দেয়া হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে করা ৬টি মামলায় ১মাস করে কারাদ- দেয়া হয়েছে ৫জনকে এবং ১জনকে ১০০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

অপরদিকে ১৪ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন ৩টি যৌথ অভিযান ও ২টি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ৯জনকে আটক করে ২ বছর করে কারাদ- দেয়া হয়েছে।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায়, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তরিকুল ইসলাম, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. রাকিব হাসান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. আসাদুজ্জামান, উপজেলা তথ্যকেন্দ্রের তথ্যআপা মাহাবুবা মাহী এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রয়োজনীয় কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ টিম ১৪ অক্টোবর থেকে প্রতিদিন যৌথ অভিযান পরিচালনা করছেন।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, মা ইলিশ রক্ষায় তাদের দপ্তরে কর্মরতদের সমন্বয়ে গঠিত টিম ছাড়াও উপজেলা প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ টিম তৎপর থাকায় মা ইলিশ রক্ষায় উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখা সম্ভব হয়েছে। তিনি এ ক্ষেত্রে শতভাগ সফলতা আশা করে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায় বলেন, মা ইলিশ রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সকলে অক্লান্ত দায়িত্ব পালন করছেন। মা ইলিশ রক্ষায় কঠোর ভূমিকা পালনে উপজেলা প্রশাসন, মৎস্য বিভাগ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করে আরও তৎপর হওয়ার জন্য আহবান জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *