কুড়িগ্রামের চায়ের দোকানী গরম দুধ ঢেলে শিশু কর্মচারীর শরীর ঝলসে দিয়েছে


কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :
কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলায় চায়ের দোকানীর ঢেলে দেয়া গরম দুধে ঝলসে গেছে ওই দোকানের শিশু কর্মচারীর শরীর। এঘটনায় আটক চায়ের দোকানী আতিক মিয়াকে শনিবার পুলিশ জেল হাজতে পাঠিয়েছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঁঙ্গা ইউনিয়নের কাশিম বাজারের চায়ের দোকানী আতিক মিয়ার দোকানে প্রতি শুক্রবার সামান্য কয়েকটি টাকার বিনিময়ে কাজ করত পাশর্^বর্তী মুসরত নাখেন্দা গ্রামের হতদরিদ্র ফুলবাবুর শিশুপুত্র নুরনবী (১০)। সে পাশর্^বর্তী একটি মাদ্রাসার ৩য় শ্রেণীর ছাত্র।
শুক্রবার দুপুরে ওই দোকানের মালিক আতিক মিয়া শিশুটিকে দ্রুত চা তৈরী করে দিতে বলেন। শিশুটি চা তৈরী করতে দেরী করায় দোকানের মালিক রেগে গিয়ে শিশুটির শরীরে গরম দুধ ঢেলে দেন। এতে করে শিশুটির ঘাড়, পিঠ ও নিম্নাংশ ঝলসে যায়। পরে শিশুটির অভিভাবকরা তাকে কুড়িগ্রাম সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করেন।
ঘটনার সময় লোকজন রাজারহাট থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ চায়ের দোকানী আতিক মিয়াকে আটক করে। পরে শুক্রবার রাতে নুরনবীর পিতা ফুলবাবু বাদী হয়ে রাজারহাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
আটক চায়ের দোকানী আতিক মিয়া উক্ত ইউনিয়নের পশ্চিম দেবত্তর গ্রামের মকবুল হোসেনের পুত্র বলে জানা গেছে।
রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনিবার আসামীকে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *