ভারতীয় বাঁধ থেকে আসা পানির জন্য বন্যা, এই বন্যা মোকাবেলায় কার্যকর পদক্ষেপ চাই : এনডিপি

রাজনৈতিক প্রতিবেদনঃ
উজানের ভারী বর্ষণ ও ভারতের বিভিন্ন বাঁধ ছেড়ে দেয়ায় নীলফামারীতে তিস্তা, যমুনা, সুরমা, সারিগোয়াইন, যদুকাটা ও গুড় নদীর সাতটি পয়েন্টে পানি বিপদসীমার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে। নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, নাটোর, সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা জেলায় ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমন অবস্তায় করোনা মোকাবেলার মত কথা মালা নয়, বন্যা মোকাবেলায় দেশবাসী সরকারের কার্যকর পদক্ষেপ দেখতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি কে এম আবু তাহের..

এনডিপি চেয়ারম্যান বলেন… বিরাজমান বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সরকারের সংশ্লিষ্টদের কর্তব্য হলো সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে দুর্ভোগ মোকাবিলায় যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ ও তার সুষ্ঠু বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা। বলার অপেক্ষা রাখে না, নতুন করে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার অর্থ হলো মানুষের দুর্ভোগ বৃদ্ধি পাওয়া।
তিনি আরো বলেন, একদিকে কোভিড-১৯ করোনাভাইরাসের মধ্যে মানুষ চরম বিপাকে পড়েছে। নানা ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ সচেতন থাকার বিষয়টি বারবার বলা হচ্ছে। আবার এর মধ্যে যদি মানুষ হঠাৎ এই বন্যা পরিস্থিতিতে পড়ে তবে তা কতটা আশঙ্কাজনক বাস্তবতাকে স্পষ্ট করে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। চরম বিপাকে পড়ার খবর উঠে আসছে বৃদ্ধ, প্রতিবন্ধী আর শিশুদের। এ ছাড়া অব্যাহত বন্যায় ডুবে গিয়েছিল উঠতি ফসল বাদাম ও ভুট্টাসহ নানান জাতের সবজি। এসব এলাকায় শুকনো খাবার ও শিশু খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিতে পারে। এই অবস্থায় সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্বাত্মক উদ্যোগ জারি রাখার বিকল্প নেই।

তিনি আরো বলেন, ভারত থেকে ন্যায্য পানির হিস্যা আদায় না করার ব্যর্থতা সরকারের, সরকার এত বছর অবৈধ উপায়ে ক্ষমতায় থেকেও আজ পর্যন্ত পারেননি ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে, আন্তর্জাতিক নদী রুটে বাদ দিয়ে বর্ষা মৌসুমে পানি ছাড়ে প্রতি বছর এর জন্য বাংলাদেশ প্রায় জেলায় বন্যা থাকে প্রতি বছর,
তবুও এই বিষয় এ সরকার সম্পূর্ণ চুপ থাকে,তাই দ্রুত সময়ে ভারতের অবৈধ বাধ দেয়ার বিষয় এ জনগণ কে সজাগ থাকতে হবে সরকার কে বাধ্য করতে হবে যেন কার্যকরী পদক্ষেপ নিয়ে বাংলাদেশকে বন্যার হাত থেকে রক্ষা করেন….!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *