চতুর্থ বর্ষে “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস”

“ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড” একটি পেশাজীবী সমবায় সমিতি। বিশেষ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী এ সমিতিটি ৩০তম বিসিএস ব্যাচে যোগদানকারী বিভিন্ন ক্যাডারের এক ঝঁাক নবীন ও প্রাণবন্ত কর্মকর্তার আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিগত ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ খ্রিঃ তারিখে সমবায় অধিদপ্তরের জেলা সমবায় কার্যালয়, ঢাকা হতে নিবন্ধন লাভ করার পর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র, ঢাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে শুভ উদ্বোধন ও “ত্রিমাত্রিক প্রারম্ভিকা” স্মরণিকা উন্মোচনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। সংগঠনটি গত বছর তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে “ত্রিমাত্রিক স্বপ্নযাত্রা” স্মরণিকা উন্মোচনের মাধ্যমে বর্ষপূর্তি উৎসব পালন করে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সংগঠনটি আনুষ্ঠানিকভাবে বর্ষপূর্তি উদযাপন না করলেও, দেশ ও মানুষের কল্যাণে অপ্রতিরোধ্য গতিতে “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” সংগঠনটি “অংশীদারিত্ব-পেশাদারিত্ব-সমৃদ্ধি” ভাবনা ও স্বপ্ন নিয়ে বিশিষ্টজনদের দিকনির্দেশনা ও অভিজ্ঞতার মাধ্যমে সাংগঠনিক কার্যক্রম শক্তিশালী করছে এবং দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে যুগোপযোগী  ও কার্যকর ভূমিকা রাখছে। “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড” এর সফল কার্যক্রমের ৩ বছর পূর্তিতে সমিতির সকল সদস্যগণ দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও শুভাকাঙ্খীদের অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এবং সমবায় কার্যক্রমে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের অভিজ্ঞ এবং দক্ষ কর্মকর্তাদের সুপরামর্শ ও অনুপ্রেরণায় সমিতির সদস্যদের দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করছে, কর্মস্পৃহা ও মনোবল বৃদ্ধি করছে।
“ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড” এর সদস্যদের আন্তরিকতা ও জনকল্যাণমুখী কার্যক্রমের ভাবনা ও উৎসাহের মাধ্যমে করোনাযোদ্ধাদের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা দেখিয়ে সংগঠনটি ইতোমধ্যে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশসহ করোনাযোদ্ধা বিভিন্ন বন্ধুদের ” সুরক্ষা সামগ্রী” উপহার দিয়েছে। শুধু তাই নয়, ৩০তম বিসিএস এর বিভিন্ন ক্যাডার কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণ ও সহযোগিতায় আরো বড় পরিসরে কাজ করবার উৎসাহ পাচ্ছেন ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস।
মানবিক সকল কার্যক্রমে “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” অনন্য ভূমিকা রাখবে – এই প্রত্যয় নিয়ে সংগঠনটি স্বপ্ন দেখে। এছাড়াও বিগত তিন বছরে সংগঠনটি ফ্রি হেলথ ক্যাম্প, শীতবস্ত্র বিতরণ, ত্রাণ সামগ্রী বিতরণসহ নানা সচেতনতামূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করেছে এবং করোনা মহামারীতে সংগঠনটি মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে-যা সমবায় কার্যক্রমেও অনুসরনীয় অনন্য ভূমিকা হিসেবে সকলকে উৎসাহিত করেছে। সংগঠনটির স্বপ্ন বাস্তবায়নে এবং আদর্শ সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক  আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ,  বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. নিয়াজ আহমদ খান, বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, নিবন্ধক ও মহাপরিচালক, সমবায় অধিদপ্তরসহ সমাজের বিশিষ্টজনরা প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সংগঠনটির কার্যক্রমে উৎসাহ প্রদান করে আসছেন।
‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ সংগঠনটি ‘অংশীদারিত্ব-পেশাদারিত্ব-সমৃদ্ধি’ ভাবনা ও স্বপ্ন নিয়ে মানবিক ও সামাজিক সকল ক্ষেত্রে গত তিন বছর যাবৎ অনন্য ভূমিকা রেখে আসছে এবং সেবাকর্মী সংগঠন হিসেবে জনসমাজে প্রশংসিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। সমবায়ের আইন বিধি প্রতিপালন, সদস্যদের কল্যাণে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ এবং সমবায়ের সামাজিক দায়িত্ব পালনে পেশাজীবী সংগঠনগুলো অনুসরনীয় ভূমিকা পালন করছে। ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ সংগঠনটি এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখার পাশাপাশি নিজেদের একটি আদর্শ সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হবে।
এছাড়াও সংগঠনটি মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসসহ বিভিন্ন বই উপহার প্রদান করেছে। দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করা এ সংগঠনটির সকল সদস্যদের পারস্পরিক সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক সর্বদা অক্ষুন্ন থাকবে। এছাড়াও সমবায় ভিত্তিক সমাজ গড়া ও টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিতকরণে কাজ করে যাবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে হৃদয়ে ধারণ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে সমিতির সদস্যগণ একনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাবেন বলে তারা বিশ্বাস করেন।
“ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড” এর সভাপতি ডিএমপি’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, স্বপ্ন ও বাস্তবতার মেলবন্ধন-ই জীবন। “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সমাজের জন্য কিছু করবার উদ্যোমী মনোভাব প্রকাশ করে আসছে এবং স্বপ্ন বাস্তবায়নে সদস্যদের মধ্যে সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি ও একতার নিদর্শন  বজায় রেখে সমবায় কার্যক্রম শক্তিশালী করতে বিগত তিন বছর নানা সামাজিক ও মানবিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। “স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলের উৎসাহ ও সহযোগিতা দেশের এই প্রেক্ষাপটে মানবিক সকল কার্যক্রমে সংগঠনের অংশগ্রহণ দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে শক্তিশালী ভূমিকা রাখবে- আসুন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, নিজে নিরাপদ থাকি, দেশকে নিরাপদ রাখি”। দেশের বর্তমান ক্রান্তিলগ্নে করোনা মহামারী মোকাবেলায় ৩০তম বিসিএস এর সকল সদস্য যে যার অবস্থান থেকে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি অনেকেই ব্যক্তি উদ্যোগে করছেন অনেক মহৎ কাজ। সেখান থেকেও চিকিৎসক, পুলিশসহ সম্মুখযোদ্ধা অনেকেই অদৃশ্য এই শক্র নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তবুও ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” জনকল্যাণে মাঠে ছিলো, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। দেশ ও মানুষের কল্যাণে অপ্রতিরোধ্য গতিতে “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” এর সাথে ৩০তম বিসিএস বিভিন্ন ক্যাডারের সদস্যগণ আমাদের সাথে থেকে সাহস ও শক্তি যোগাচ্ছেন এবং জনকল্যাণে তাদের সম্পৃক্ততা ও সহযোগিতা আমাদেরকে বড় পরিসরে কাজ করবার উৎসাহ যোগাচ্ছে।“ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড”এর পথচলা মসৃণ হোক। নতুন উদ্যোমে নতুন ভাবনা নিয়ে সাম্প্রতিক  বিশ্ব পরিস্থিতিতে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে  ও মানবিক সকল কার্যক্রমে “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” অনন্য ভূমিকা রাখবে-এই হোক দৃঢ় প্রত্যয়। “ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস” এর চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে সমিতির সকল সদস্যদের প্রতি রইল আমার আন্তরিক ভালোবাসা ও শুভ কামনা।
সমবায় অধিদপ্তর, ঢাকা এর নিবন্ধক ও মহাপরিচালক মোঃ আমিনুল ইসলাম ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড’ এর সফল কার্যক্রমের ৩ বছর পূর্তিতে অভিনন্দন বার্তায় সমিতির সকল সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।এছাড়াও তিনি ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস এর করোনা মহামারী মোকাবেলায় মানবিক ও সামাজিক দায়িত্ব পালনে অনন্য ভূমিকা রাখায় ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বই উপহার প্রদানসহ নানা সামাজিক কর্মকান্ডের উদ্যোগের প্রশংসা করে সংগঠনটির  উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করেন।
 

 
সভাপতির বাণী:
 
স্বপ্ন ও বাস্তবতার মেলবন্ধন-ই জীবন। ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সমাজের জন্য কিছু করবার উদ্যোমী মনোভাব প্রকাশ করে আসছে এবং স্বপ্ন বাস্তবায়নে সদস্যদের মধ্যে সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি ও একতার নিদর্শন  বজায় রেখে সমবায় কার্যক্রম শক্তিশালী করতে বিগত তিন বছর নানা সামাজিক ও মানবিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দেশ ও মানুষের কল্যাণে অপ্রতিরোধ্য গতিতে ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ সংগঠনটি ‘অংশীদারিত্ব-পেশাদারিত্ব-সমৃদ্ধি’ ভাবনা ও স্বপ্ন নিয়ে বিশিষ্টজনদের দিকনির্দেশনা ও অভিজ্ঞতার মাধ্যমে সাংগঠনিক কার্যক্রম শক্তিশালী করছে এবং দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে যুগোপযোগী  ও কার্যকর ভূমিকা রাখছে। ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড’ এর সফল কার্যক্রমের ৩ বছর পূর্তিতে সমিতির সকল সদস্যগণসহ দেশবাসীকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা। ‘স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলের উৎসাহ ও সহযোগিতা দেশের এই প্রেক্ষাপটে মানবিক সকল কার্যক্রমে সংগঠনের অংশগ্রহণ দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে শক্তিশালী ভূমিকা রাখবে- আসুন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, নিজে নিরাপদ থাকি, দেশকে নিরাপদ রাখি’। মানবিক সকল কার্যক্রমে ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ অনন্য ভূমিকা রাখবে – এই প্রত্যয় নিয়ে সংগঠনটি স্বপ্ন দেখে । দেশের বর্তমান ক্রান্তিলগ্নে করোনা মহামারী মোকাবেলায় ৩০তম বিসিএস এর সকল সদস্য যে যার অবস্থান থেকে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি অনেকেই ব্যক্তি উদ্যোগে করছেন অনেক মহৎ কাজ। সেখান থেকেও চিকিৎসক, পুলিশসহ সম্মুখযোদ্ধা অনেকেই অদৃশ্য এই শক্র নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তবুও ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ জনকল্যাণে মাঠে ছিলো, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। দেশ ও মানুষের কল্যাণে অপ্রতিরোধ্য গতিতে ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ এর সাথে ৩০তম বিসিএস বিভিন্ন ক্যাডারের সদস্যগণ আমাদের সাথে থেকে সাহস ও শক্তি যোগাচ্ছেন এবং জনকল্যাণে তাদের সম্পৃক্ততা ও সহযোগিতা আমাদেরকে বড় পরিসরে কাজ করবার উৎসাহ যোগাচ্ছে।
‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড’এর পথচলা মসৃণ হোক। নতুন উদ্যোমে নতুন ভাবনা নিয়ে সাম্প্রতিক  বিশ্ব পরিস্থিতিতে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে  ও মানবিক সকল কার্যক্রমে ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ অনন্য ভূমিকা রাখবে-এই হোক দৃঢ় প্রত্যয়। ‘ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস’ এর চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে সমিতির সকল সদস্যদের প্রতি রইল আমার আন্তরিক ভালোবাসা ও শুভ কামনা।
আমি সংগঠনটির সার্বিক সাফল কামনা করি।
 
 
মোঃ জাহাঙ্গীর আলম
সভাপতি
ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড

অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (কোয়ার্টার মাস্টার-পিওএম)
যুগ্ম-পুলিশ কমিশনার (পিওএম) এর দপ্তর
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, ঢাকা।
 
 
 
 
 
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *