ঝালকাঠিতে রাতের আধারে বাগানের পেঁপে গাছ কাটায় থানায় অভিযোগ দায়ের

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:ঝালকাঠি জেলার সদর উপজেলাধীন খাদৈক্ষিরা গ্রামের রাজ্জাক মল্লিক ওরফে ( রেজ্জেক মল্লিক) এর পেঁপে বাগনের প্রায় ৮০টি পেঁপে রাতের আধারে কেটে ফেলেছে দূর্বৃত্তরা। এ বিষয় রাজ্জাক মল্লিক বাদী হয়ে বাগানের বর্গা চাষী পার্শবর্তী গ্রামের মৃত সৈজদ্দীন হাওলাদারের ছেলে নাসির হাওলাদারের বিরুদ্ধে ঝালকাঠি সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ বিষয় মামলা অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, অভিযোগকারী রাজ্জাক মল্লিকের ১৫ শতক জমি বর্গা হিসেবে চাষাবাদ করার জন্য পার্শবর্তী গ্রামের নাসির নেয়। উক্ত জমিতে নাসির পেঁপে গাছ সহ বিভিন্ন শাঁক সবজি চাষ করে। ঘূর্নীঝড় বুলবুলের আঘাতে উক্ত বাগানে ক্ষতি সাধান হওয়ায় বিবাদী আমার জমি চাষ করবে না বলে আমাকে আমার জমি ফেরৎ দিয়ে সে চলিয়া যায়। পরে আমি নিজে আমার জমির বাগান পরিচর্যা করার মাধ্যমে পেঁপে গাছগুলো ফলন উৎপাদনক্ষম করে তোলার পর বিবাদী আমার ক্ষেতের ভাগ চায়। বিষয়টি নিয়ে গত ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২০ তারিখ রাতে আনুমানিক ৮টার সময় নবগ্রাম মডেল স্কুলের পূর্বপাশে রাস্তা সংলগ্ন এক দোকানে বসিয়া শালিশ মিমাংশার কথা থাকায় সেখানে ক্ষেতের ভাগ হিসেবে বিবাদী আমার কাছে কিছু টাকা দাবী করে এবং ক্ষেতের ভাগের বিষয়ে কোন প্রমান উপস্থাপন করতে না পারায় আমি তাকে তার দাবীকৃত ক্ষেতের ভাগ হিসেবে দাবীকৃত টাকা না দেয়ায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার বাগানের গাছ কাটিয়া ক্ষতি সাধান করবে বলে হুমকি দেয়। আমি সেখান থেকে আমার বাড়ি চলিয়া আসি। পরের দিন ১১ জানুয়ারী সকালে আমি পেঁপে গাছের পরিচর্যার জন্য বাগানে গিয়ে পেঁপে গাছ গুলো মাটিতে পড়ে থাকতে দেখি। সেখানে প্রায় আশিটি পেঁপে গাছ কাটা অবস্থায় পাই।

এ বিষয় নাসিরের কাছে তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, আমাকে আমার প্রাপ্য টাকা চাইলে রাজ্জাক মল্লিক দিবেনা বলে। তখন রাগের মাথায় আমি গাছ কেটে ফেলবো বলেছি কিন্তু আমি গাছ কাটিনা। আমি যেদিন কাটার কথা বলেছি সেইদিন বিকেলে ঝালকাঠি থেকে গাড়ী যোগে ঢাকা চলে এসেছি। একাজটা আমাদের মধ্য বিবাদ সৃষ্টির জন্য আমার সত্রু পক্ষের কেউ করেছে। এ বিষয় রাজ্জাক মল্লিকের দায়েরকৃত অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা ঝালকাঠি সদর থানার এসআই গাউছ এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, বাদীর দায়েরকৃত অভিযোগটি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তপূর্বক পরবর্তি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *