পল্লী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে যৌন নিপিড়নের অভিযোগ

রাজীবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলায় দিনমজুর ঘরের এক গৃহবধূকে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার সময় যৌন নিপিড়ন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার কোদালকাটি ইউনিয়নের আলমগীর হোসেন নামের এক পল্লী চিকিৎসকের কাছে স্থানীয় এক গৃহবধূ স্ত্রী রোগজনিত চিকিৎসার জন্য গেলে লম্পট ওই চিকিৎসক তার চেম্বারের রোগী দেখার কক্ষে চিকিৎসার নামে জোরপূর্বক যৌন নির্যাতনের চেষ্টা চালায়। এসময় গৃহবধূ চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এগিয় এসে তাকে উদ্ধার করে।

বুধবার(৪মার্চ) উপজলার ব্রহ্মপুত্র নদ বিচ্ছিন্ন দুর্গম সাজাই আনন্দবাজারে ওই পল্লী চিকিৎসকের নিজস্ব চেম্বার এ ঘটনা ঘটে।
যৌন নির্যাতনের ঘটনায় নির্যাতিত ওই গৃহবধূ রাজীবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করলে ক্ষিপ্ত হয় ওঠে পল্লী চিকিৎসক।

থানায় অভিযোগ দেওয়ার কারনে নিপিড়নের শিকার গৃহবধূর স্বামী আমিনুল ইসলামকে মারপিট করে অভিযুক্ত আলমগীর ও তার স্বজনরা।আহত আমিনুল ইসলাম রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা নিয়েছে। রাজীবপুর থানায় লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

নির্যাতিত পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে আরও জানা গেছে, অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক আলমগীর হোসেন ও তার স্বজনরা প্রভাবশালী। ফলে চিকিৎসার নামে যৌন নির্যাতনের মতা একটি জঘন্য ঘটনা ঘটনোর পরেও স্থানীয়রা প্রকাশ্য কথা বলতে সাহস পাচ্ছে না অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে। অপরদিকে নির্যাতিত গৃহবধূর স্বামী একজন দিনমজুর। অর্থ ও ক্ষমতার কাছ অসহায় হয়ে পড়েছে পরিবারটি।

নির্যাতিতার স্বামী আমিনুল ইসলাম সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ‘থানা থেকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য আমাকে ভয় দেখানো হচ্ছে। মামলা তুলে না’নিলে গ্রামে থাকতো দিবে না এমন হুমকি দিয়েছে’।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় ওই এলাকার ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমানের সাথে তিনি বলেন, ‘দিন দুপুরে বাজারে ডাক্তার এমব একটা ঘটনা ঘটালো অথচ এখন পর্যন্ত পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিল না।পল্লী চিকিৎসক প্রভাবশালী হওয়ায় দরিদ্র পরিবারটিকে হুমকি দিচ্ছে।

অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক আলমগীর হোসেনের সাথে কথা বলার জন্য তার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেন নি। তাই তার বক্তব্য নেওয়াও সম্ভব হয় নি।

এ প্রসঙ্গ জানত চাইল রাজীবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গোলাম মোর্শেদ তালুকদার জানান, অভিযোগ পেয়েছি।ঘটনাটি সরেজমিনে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *