নাগেশ্বরীর সাপখাওয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে বিবাদমান জমিতে বসতঘর তৈরী করছে


মোঃ মজিবর রহমান নাগেশ্বরী ঃ নাগেশ্বরীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে বিবাদমান জমিতে বসতঘর তৈরী করছে আব্দুস সাত্তার গং। বাদী নিরুপায় হয়ে সুষ্ঠ বিচার না পেয়ে থানার দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

মামলার বিবরণ ও বাদী সুত্রে জানা গেছে দক্ষিণ সাপখাওয়া গ্রামের ধনের উদ্দিন এর পুত্র মোঃ আব্দুর রহমান গিত ১৯৮৫ সালে ৮১৩২ নং দলিল মূলে ধনদ্দির নিকট থেকে ১৬ শতক ,১৯৮০ সালে ৫৮৭৪ নং দলিল মূলে পনির উদ্দিনের নিকট থেকে ৮ শতক জমি এবং ১৯৮০ সালে ৮৩৭৪ নং দলিল মূলে আব্দুস ছাত্তার মোক্তার এর নিকট থেকে ১১ শতকসহ মোট ৩৫ শতক জমি ত্রুয় সুত্রে দীর্ঘদিন থেকে ভোগ দখল করে আসছেন। চতুর ও ধৃর্তবাজ আব্দুস সাত্তার মোক্তার বিত্রুয়কৃত জমি চালাকী করে বিত্রিুর আগে গোপনে স্ত্রী ও পুত্র দ্বয়ের নামে ৩৩ শতক জমি কবলা করে দেন। যাহার কোন কার্যকারিতা বা আইনগত বৈর্ধতা নেই। শুধু তাই নয় ঔ ভুয়া দলিল দিয়ে কৌশলে নিজ নামে খারিজ এবং আর এস ডিপি রেকর্ড করেন । জমির প্রকৃত মালিক আঃ রহমান জানতে পেরে ভুয়া খারিজ এবং আর এস ডিপি রেকর্ডের উপর সহকারী কমিশনার (ভুমি ) নাগেশ্বরী অফিসে গত ১০.০৪.২০১৮ইং তারিখে ১৮/১৮ নং মোকদ্দমা দায়ের করেন। এতে অব্দুস সাত্তার গং ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১৫.০৪.২০১৮ইং লাঠি,বল্লম,দা,কাচি,কুড়াল ও মারাতœক অস্ত্রসহ বাদীর ৩৫ শতক জমিতে লাগানো পাটও ধুমসা কাটিয়ে নেওয়ার অপচেষ্টা করেন। কিন্ত বাদী পক্ষ বাধা প্রদান করিলে তারা ফিরে যেতে বাধ্য হন। আসামীরা যাতে অবৈর্ধ ভাবে জমি দখল করিতে না পারে এই মর্মে বিবাদীর বিরুদ্ধে স্বত্ব সাব্যস্ত চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার ডিত্রুীর জন্য আদালতে মোকদ্দমা দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালত গত ১১.০২.২০২০ইং তারিখে উক্ত জমিতে উভয় পক্ষের জন্য নিষেজ্ঞা জারী করেন। বাদী পক্ষ আদালতের রায় মানলেও আসামী আব্দুস সাত্তার গং ২৩ ডিসেম্বর/২০১৯ইং তারিখে উক্ত জমিতে অবৈর্ধ ভারে ঘর উত্তোলন করার চেষ্ট করেন। বাদী আব্দুর রহমান এতে বাধা প্রদান করে কিন্ত আসামীরা তাকে হত্যার হুমকি দিলে সে ভয়ে নাগেশ্বরী থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। এর ফলে এস এই ফারুকি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘর তোলার বিভিন্ন মালামাল জব্দ করেন এবং ঊভয় পক্ষকে জমির কাগজপত্রসহ গত- ০১.০১.২০২০ইং নাগেশ্বরী থানায় উপস্থিত থাকার জন্য বলেন। এ দিকে গোপনে বাদীকে না জানিয়ে আসামীদের জব্দকৃত টিন ও কাঠ বাঁশ ফেরত দেন। মালামাল ফেরত পেয়ে আসামীরা থানায় উপস্থিত না হয়ে আবারো গত ২৩.০১.২০২০ইং তারিখে উক্ত জমিতে মাটি কাটা সহ ঘর উত্তোলন করার চেষ্টা করে। বাদী আ: রহমান গত ২৪.০১.২০২০ইং তারিখে নাগেশ্বরী থানায় আরো একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এরই পেক্ষিতে এস আই জুয়েল আসামী মিন্টু কে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করে। পরে ঔ জমিতে না যাওয়ার শর্তে অঙ্গীকার নামায় ছেড়ে দেন। বার বার পার পাওয়ায় আসামীরা আবারো ১৬.০২.২০২০ইং তারিখে ঘর তোলার চেষ্টা করলে নাগেশ্বরী থানার এস আই আলিফনুর ঘটনাস্থলে গিয়ে আদালতের নিষেজ্ঞার কথা জানিয়ে দেন এবং ঔ বিবাদমান জমিতে কোন প্রকার ঘর বা দখল করা যাবেনা বলে সতর্ক করেন। আসামীরা এতই ক্ষ্যান্ত না হয়ে গত ১৩.০৫.২০২০ইং তারিখে গভীর রাতে নুতন করে একটি খড়ের ঘর তৈরী করেন। ফলে বাদী পক্ষ বর্তমানের উক্ত আসামীদের ভয়ে জীবন যাপন করছে। অত্র এলাকার অভিজ্ঞ মহল মনে করেন সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষ সরেজমিন তদন্ত করে সঠিক সমাধান দিলে হয়ত বড় ধরনের কোন অপ্রতিকর পরিবেশের সৃষ্টির হাত থেকে উভয় পক্ষ রক্ষা পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *