Kurigram Flood photo- 21.07.16
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ঃ
কুড়িগ্রামের ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা ও দুধকুমারসহ ১৬টি নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যহত থাকায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপদ সীমার ২২ সেন্টিমিটার ও ধরলার পানি সেতু পয়েন্টে ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বেড়েছে তিস্তা ও দুধকুমারের পানিও।
পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার চিলমারী, উলিপুর, রৌমারী, রাজীবপুর, নাগেশ্বরী ও সদর উপজেলার দেড় শতাধিক চর ও দ্বীপ চরের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। বন্যা দুর্গত এলাকায় সরকারী বা বেসরকারী ভাবে এখন পর্যন্ত কোন ত্রান সামগ্রী না পৌছায় খাদ্য সংকটসহ দুর্ভোগে পড়েছে বানভাসীরা। দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও গো-খাদ্যের তীব্র সংকট। রাস্তা-ঘাট তলিয়ে থাকায় ভেঙ্গে পড়েছে যোগযোগ ব্যবস্থ।
সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর পারবতীপুরের আহেলা বেগম জানান, তার স্বামী দিন মজুরের কাজ করে সংসার চালায়। বন্যা আসায় হাতে কোন কাজ নেই। ছেলে-মেয়ে নিয়ে খাবার সংকটে পড়েছেন বলে জানান তিনি।
একই চরের বাসিন্দা আবদার জানান, ঘরে খাবার নাই, কাজেও যেতে পারছি না। কেউ এখন পর্যন্ত খোঁজ-খবর নেয়নি। খুব কষ্টে আছি।
নদ-নদী তীরবর্তী চর ও দ্বীপচরের মানুষজন এক সপ্তাহের ব্যবধানে ২য় দফা বন্যার কবলে পড়ায় দুর্ভোগ বেড়েছে তাদের। জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, ১শ মেট্রিক টন চাউল ও ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ পেলেও তা এখনো বিতরন করা হয়নি। মজুদকৃত ত্রান বিতরন না হলেও নতুন করে আরো বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে।
কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক খান মোঃ নুরুল আমিন জানান, আমাদের কাছে ১শ মেট্রিক টন চাউল ও ৪ লাখ টাকা মজুদ রয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আরো ৫শ মেট্রিক টন জিআর চাউল ও ১০ লাখ টাকা চেয়েছি। আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে নতুন বরাদ্দ পাব। বন্যা কবলিত এলাকায় ক্ষয়ক্ষতি নিরুপনের কাজ চলছে। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করে ত্রান সামগ্রী বিতরন করা হবে।
কুড়িগ্রম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাহফুজুর রহমান জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া ধরলার পানি সেতু পয়েন্টে ১৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বৃদ্ধি পেয়েছে তিস্তা ও দুধকুমারের পানি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।