ক্ষেতলালে গৃহবধূ কে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে জখম

ফারহানা আক্তার, জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল জিয়াপুরে ছানাউলের স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে।
ক্ষেতলাল উপজেলার জিয়াপুর গ্রামের খান পাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ক্ষেতলাল থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগীর ম্বামী ছানাউল (৪২)
অভিযোগ থেকে জানা গেছে, জিয়াপুর স্বামীর বাড়িতে কিশোর ছেলেকে নিয়ে বসবাস করে আসছেন নামজা (৪০)। স্বামী ছানাউল । পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে শনিবার সকালে দিকে নাজমার উপর হামলা করেন ১ তুহিন( ৪৫) পিতা তোতা মিয়া সাং রুকিন্দীপুর ফকির পাড়া, থানা আক্কেলপুর। ২ ছানু মোল্লা( ৪০)পিতা আমজাদ মোল্লা, ৩ রুহুল ইসলাম (১৯) পিতা ছানু মোল্লা, ৪ রুমি আক্তার (৩৫) স্বামী ছানু মোল্লা, সর্ব সাং মহব্বতপুর, থানা ক্ষেতলাল, সর্ব জেলা জয়পুরহাট।
মামলার বিবরণে জানা যায় ১ নং আসামি তুহিন হুকুম দিলে নাজমা কে এলোপাতাড়ি মারপির করতে থাকেন। নাজমার চিৎকারে পাশের বাড়ি থেকে প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ সময় ছানু মোল্লার স্ত্রী সন্তানসহ পালিয়ে যান।
হামলায় আসামি কর্তৃক নাজমা বেগম ডান পায়ের কব্জির উপর লাগে হাড় ভেঙ্গে গেছে এবং হাতেও কয়েকটি সেলাই দিতে হয়েছে। এবং শরীরে বিভিন্ন জায়গায় মারাত্মক জখম হয়েছে। জয়পুরহাট আধনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নাজমার অবস্থা সঙ্কটাপন্ন।
এই ঘটনায় ২৭ মার্চ (রবিবার) ক্ষেতলাল থানায় নাজমার স্বামী বাদি হয়ে তুহিনসহ ৪ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলার নম্বর ২৯
মামলার বাদি নাজমার স্বামী ব্যবসায়ী জানান, শুরু থেকেই ছোটখাটো বিষয় নিয়ে ঝগড়া করতো ছানু মোল্লার স্ত্রী। এর আগেও একবার আমার স্ত্রী কে ধমক দিয়েছল। নির্মম ভাবে হত্যার উদ্দেশ্য মারপিট করে। আমি তুহিন ছানু মোল্লা সহ সকল আসামিদের বিচার চাই।
নাজমার স্বামী ছানাউল আরও বলেন আমার স্ত্রী মৃত্যু সয্যয় স্ত্রীকে নিয়ে ঘটনার দিন থেকে জয়পুরহাট আধনিক জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছি। অথচ আসামি ছানু মোল্লা তার নিজ বাড়ির চুলার পারে আগুন লাগানো একটা মিথ্যা সাজোনো নাটক করে কোটে আমি সহ প্রতিবেশীদের নামে হয়রানি অভিযোগ করেছেন।
প্রতিবেশি তার আরেক ভাই জাহাঙ্গীর বলেন, আমি ঘুমে ছিলাম চিৎকারনশুনে সেখান থেকে বাড়িতে এসে দেখি এমন ঘটনা। পরে ভুক্তভোগীকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখান থেকে তারা চিকিৎসা নিচ্ছে৷
মামলার বিবরনি ও এলাকা সূত্রে যানা যায় জিয়াপুর মহল্লার রেখা, সবুজ, বিদ্যুৎ, ছানোয়ার সহ কয়েকজন বাসিন্দা বলেন। ছানু মোল্লার স্ত্রী রুনি কে অভিযুক্ত করে বলেন ছানু মোল্লার বাড়িতে কেউ থাকে না প্রায় তুহিন আসেন গত ২৯ মার্চ দিবাগত রাত ২ টায় তার চুলার পারে আগুন লেগেছে অথছ প্রতিবেশি কেউ জানে না এটি একটি পরিকল্পিত সাজানো আগুন চুলার পারে দিয়ে প্রতিবেশির বিরুদ্ধে হইরানিমূলক মামলা করে ছানু মোল্লার

তুহিনের স্ত্রী সম্পর্কে একাধিক প্রতিবেশিরা বলেন, তুহিনের স্ত্রী বেশি একটা ভালো মেয়ে না। আচার ব্যবহার খারাপ। নাজমার বাড়ি ও তুহিনের বাড়ি পাশাপাশি। তবে তাদের মধ্যে কী বিষয়ে ঝামেলা তা জানি না।
এ বিষয়ে ক্ষেতলাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রওশন ইয়াজদানী বলেন, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে এবং একজন আসামি গ্রেফতার হয়েছে তাকে কোটে প্রেরণ করা হয়। ও একজন আসামি জামিন নিতে জয়পুরহাট কোটে গেলে আদালত জানিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠান। আসামী ছানু মোল্লা কারা গারে আছেন আগুন লাগার বিষয়টি আমরা শুনেছি কোটে মামলা হইছে তদন্ত আসলে আইনআনুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.