download (1)

মোহাম্মদ সাকিব চৌধুরী, খানসামা(দিনাজপুর)প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়েছে তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে। গত ১ মাস ধরে উপজেলায় ৫ টি ইউনিয়নে বিএনপি’র ভারাডুবির কারন অনুন্ধান চালিয়ে দেখা দেখা গেছে, ভরাডুবির নেপথ্যে রয়েছে, সাংগঠনিক দূর্বলতা, জামায়াতের সাথে সমন্বয় না থাকা, বিতর্কিত প্রার্থীকে প্রার্থীকে মনোনয়ন । উল্লেখ্য গত ২৩ এপ্রিল তৃতীয় দফায় অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে খানসামা উপজেলায় ৬ টি ইউপি’র মধ্যে ৫ টিতে জয় আনতে পারে নি রাজপথের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি।

নির্বাচনে ভরাডুবির বিষয়ে স্থানীয় বিএনপি পন্থি কয়েক জন বিশিষ্ট জনের সাথে কথা হলে তারা জানান, সাংগঠনিক দূর্বলতা, জামায়াতের সাথে সমন্বয় না থাকা ও বিতর্কিত প্রার্থীদের ধানের শীষের প্রার্থী করায় এবার খানসামায় বিএনপির এই ভরাডুবি হয়েছে ।

৩ টি ইউনিয়নে বিএনপির পাশাপাশি নির্বাচনে জামায়াত অংশ নেওয়ায় বেশ বেকায়দায় ছিল বিএনপি।তাই শেষ পর্যন্ত ভোটের অংঙ্ক মেলাতে পারে নি বিএনপি বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে। এর মধ্যে ভেড়ভেড়ি ইউনিয়নে ধানের শীষের প্রার্থীকে অনেক পিছিয়ে ফেলে ২য় স্থান দখল করে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী। বাকি ২ টি ইউনিয়নেও বিএনপি জোটের ব্যাপক ভোট নিজেদের ব্যালটে আনে জামায়াত । তবে আলোকঝাড়ী ইউনিয়নে উপজেলার বিজয়ী এক মাত্র বিএনপির প্রার্থী জামায়াতকে চতুর্থ অবস্থানে ফেলে এসে বিজয়ী হয়। অন্যদিকে ভাবকি ইউনিয়নে ধানের শীষ প্রার্থী পায় মাত্র ৪৪৭ ভোট। এর কারন হিসেবে বিশ্লেষকরা বলছে, হঠাৎ করে বির্তকিত আশরাফ আলী খাঁ কে ধানের শীষ প্রতীক দেওয়ায় তৃণমুল নেতাকর্মীরা কাজ করে নি ধানের শীষ প্রার্থীর পক্ষে। আর উপজেলার আলোচিত ইউনিয়ন আঙ্গারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে টানা ২য় বারের বারের মতো চেয়াম্যান পদটি হারালো উপজেলার প্রভাবশালী শাহ্ পরিবার সাথে ভরাডুবির কাতারে নিয়ে গেছে ধানের শীষ প্রতীককেও। তবে বিএনপি নেতাদের দাবি সুক্ষ কারচুপির মাধ্যামে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের দলীয় প্রার্থীদের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।