মোহাম্মদ সাকিব চৌধুরী, খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের খানসামায় স্কুল ছাত্রী অপহরনের ১১ দিনেও স্কুলছাত্রী উদ্ধার না হওয়ায় ও পুলিশ প্রশাসনের নিরব ভূমিকার প্রতিবাদে স্কুলের শিক্ষক সহপাঠী ও এলাকাবাসী মানববন্ধব কর্মসূচি পালন করেছে ।
মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার মাদার ডাঙ্গা গ্রামের টংগুয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই মানববন্ধন পালন করেন ।
টংগুয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সতীশ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে বিদ্যালয়ের তিন শতাধিক ছাত্র ছাত্রীসহ সাত শতাধিক এলাকাবাসী ঘন্টা ব্যাপি এই মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করেন ।
সহপাঠী পিংকি রানী রায় জানায় , অপহৃত নাছিমা আক্তার অত্যন্ত মেধাবী ছাত্রী ছিল । আমরা এক সাথে স্কুলে আসা যাওয়া করতাম । হঠাৎ করে গত ১৯ মার্চ স্কুল ছুটির পর মাইক্রোবাস যোগে কয়েকজন দুঃস্কৃতিকারী নাছিমা আক্তার কে অপহরণ করে নিয়ে গেছে । এখন আমরাও স্কুলে যেতে ভয় পাচ্ছি ।
রুহুল আমিন চাঁন জানায় , আমার বোন নাছিমা আক্তার অত্যন্ত ভদ্র ও মেধাবী ছাত্রী । গত ১৯ মার্চ তারিখে প্রতিদিনের মত স্কুলে যায় । স্কুল ছুটি হওয়ার পরও যখন আমার বোন নাছিমা আক্তার বাড়ীতে না আসায় খোজাখুজি শুরু করি । এমন এক সময় অজ্ঞাত একটি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আমি জানতে পারি যে নাছিমাকে অপহরণ করা হয়েছে । তাৎক্ষনিক ভাবে বিষয়টি খানসামা থানায় লিখিত ভাবে অবহিত করি । পুলিশ প্রথমে বিষয়টি নিয়ে তোরজোর করলেও এখন নিরব ভূমিকা পালন করছে ।
শ্রেনী শিক্ষক সাইদুর রহমান জানায় নাছিমা আক্তার আমার ক্লাসের মেধাবী ছাত্রী , কোন সহপাঠীর সাথে ঝগড়া ও মারামারি করত না পরীক্ষার ফলাফল খুবই ভাল ছিল । নাছিমা আক্তার অপহরন হওয়ার পর অন্যান্য ছাত্রীরাও স্কুলে আসতে ভয় পাচ্ছে। কলেজ ছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর মত নাছিমার ভাগ্যে কি আছে আমরা খুবই আশঙ্কা করছি ।
খানসামা থানা উপ-পরির্দশক প্রাণ কৃষ্ণ জানান, স্কুল ছাত্রী নাছিমা আক্তারকে অপহরণের সহযোগিতা কারী একজনকে আটক করা হয়েছে। অপহরণকারীর মুল হোতাকে আটকের জন্য চেষ্টা অব্যাহত হয়েছে ।
উল্লেখ্য যে গত ১৯ মার্চ খানসামা উপজেলার মাদার ডাঙ্গা গ্রামের টংগুয়া আদর্শ উচ্চ্ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর ছাত্রী নাছিমা আক্তারকে অপহরন করা হয় । সে উপজেলার গোবিন্দপুর মাদারডাঙ্গা গ্রামের এ্যাড. চাঁন মিয়ার বোন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।