mail.google

মো:মানিক হোসেন চিরিরবন্দর (দিনাজপুর)প্রতিনিধি: বিভিন্ন পত্র পত্রিকা সহ অনলাইনে ভুল অপারেশন স্কুল ছাত্রীর মৃত্যুর সংবাদ শিরোনামে প্রকাশের পর ঘটনার চতুর্থ দিনে গতকাল সোমবার দুপুরে চিরিরবন্দর থানার ওসি আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে রানীরবন্দর প্রাইভেট পলিটেক হাসপাতাল পরিদর্শন করেন ্এবং ছাত্রীর পরিবারের সাথে দেখা করেন। গত ১২ জুন শুক্রবার রাণীরবন্দর চাইল্ড কেয়ার স্কুল ছাত্রী নাছরিন আক্তার এর ভুল অপারেশনে মৃত্যুর খবর তোলপাড় হওয়ার পরেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ না নিলে রাণীরবন্দর বাজারে দফায় দফায় চলছে বিক্ষোপ সমাবেশ, মিছিল, মিটিং অথচ চিরিরবন্দর থানা পুলিশ নীরব দর্শকের ভুমিকা পালন করছে। অনুমোদনহীন হাসপাতাল হওয়ার পরেও থানা প্রশাসন কেন হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো স্থানীয় প্রশাসনের উপর ভর করে দায় ভার এড়ানোর ভান করছে বলে ,এলাকা বাসী জোড় দাবি জানিয়েছে।

অন্য দিকে অভিযোগে প্রকাশ থাকে যে, ডাক্টার আবদুল্লা আল মাফি পাকেরহাট হাসপাতালে যোগদান করার পর থেকে হাসপাতালে বিভিন্ন ধরনের রোগীকে রাণীরবন্দর কসাইখানা পলিটেক হাসপাতালে পাঠিয়ে বিভিন্ন ধরণের অপারেশন সেখানেই সম্পন্ন করে বলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে সরজমিনে গেলে ননডিগ্রীধারী সার্জারি প্রশিক্ষণ অসম্পন্ন সরকারী ডাক্তার খানসামা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা টিএইচ এ মাফির সাথে সাক্ষাতে কথা বলতে চাইলে তাকে কর্মস্থল পাওয়া যায়নি। তবে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে খানসামার আবাসিক মেডিকেল অফিসার মোঃ কামাল হোসেনের সাথে কথা বলতে বলেন। পরে কামাল হোসেনের সাথে কথা বললে হাসপাতালের বড়বাবু কমলার সাথে কথা বলার জন্য বলেন। কমলা বাবুর সাথে কথা হলে কমলা বাবু স্যারের অথরিটি ছাড়া তথ্য দেওয়া যাবেনা বলে সাফ জানিয়ে দেয়।

এদিকে নাছরিন আক্তারের অকাল মৃত্যুতে চাইল্ড কেয়ার স্কুলে পক্ষ থেকে শোক বার্তা জানিয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।