mail.google

মোহাম্মাদ মানিক হোসেন, চিরিরবন্দর(দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

খাদ্য শষ্যের ভান্ডার হিসাবে খ্যাত দিনাজপুরের ১৩ উপজেলা। চিরিরবন্দর-খানসামা অন্যতম। বর্ষার ভরা মৌসুমে বৃষ্টি না হওয়ায় খানসামা-চিরিরবন্দরে মাটি ফেটে চৈচির হয়ে গেছে। ফলে বৃষ্টির জন্য হাহাকার উঠেছে।
বৃষ্টির অভাবে পাট জাগ ও আঁশ ছড়াতে পারছে না। অনেক কৃষক পাট কেটে আঠি বেঁধে রেখেছে। বৃষ্টির অভাবে পাট গাট শুকে গেছে। খাদ্যের প্রধান রোপা আমন লাগাতে পাছে না। অগভীর ও গভীর নলকূপ দিয়ে কিছু কিছূ জমিতে রোপা আমন লাগালেও সঠিক সময়ে পানি সরবরাহ করতে না পারায় সেগুলো শুকে যাচ্ছে।
উপজেলার কৃষক আশরাফ আলী, বেলাল হোসেন, এনতাজুল হক, এমদাদসহ অনেকে জানান, যদি দু’ এক সপ্তাহের মধ্যে পর্যাপ্ত পরিমানে বৃষ্টি না হয় তাহলে লাগানো রোপা নষ্ট হয়ে যাবে এবং অধিকাংশ জমি রোপা আমন লাগানোর অভাবে পড়ে থাকবে। অপরদিকে কয়েক শ’মণ পাট নষ্ট হবে।
চিরিরবন্দর কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলায় রোপা আমনের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২৩ হাজার ৬১ হেক্টর জমি। কিন্তু লাগানোর সময় অতিক্রম হয়েও অধিকাংশ জমিতে এখন পর্যন্ত আমন লাগাতে পারেনি বৃষ্টির অভাবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।