ঝালকাঠিতে কভিড-১৯ টিকা প্রদানে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

মোঃ মনির হোসেন ঝালকাঠি:
কোভিড-১৯ টিকা প্রদানে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় নিয়ে ঝালকাঠিতে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহঃবার (২৪ মার্চ) সকাল ১১.৩০ টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সুগদ্ধা সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় উক্ত মতবিনিময় সভা। টিআইবি’র সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), ঝালকাঠির আয়োজনে অনুষ্ঠিত উক্ত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ নাজমুল আলম, ঝালকাঠি জেলা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ এইচ এম জহিরুল ইসলাম। এছাড়া সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ কামাল হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেকুন নাহার।

সভায় কোভিড-১৯-এর টিকা প্রাপ্তির ন্যায্যতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে ‘গভর্ন্যান্স চ্যালেঞ্জেস ইন হেলথ সেক্টর: টুওয়ার্ডস ইফেক্টিভ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ডেলিভারি’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় কমিউনিটি মনিটরিং এর প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে সনাক ঝালকাঠির পক্ষ থেকে ১১টি বিষয়ে সুপারিশ তুলে ধরা হয়। সুপারিশগুলো হচ্ছে- অপ্রাতিষ্ঠানিক উৎসের পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগে টিকা গ্রহণ সংক্রান্ত তথ্য প্রচারের ব্যবস্থা আরও জোরদার করা; সবার জন্য সমতার ভিত্তিতে টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে অনলাইনে নিবন্ধন সংক্রান্ত সকল জটিলতা দূরীকরণে উদ্যোগ গ্রহণ এবং এ সংক্রান্ত বিকল্প ব্যবস্থা রাখা; যথাসময়ে সবার জন্য টিকার সরবরাহ নিশ্চিত করা এবং টিকার পরবর্তী ডোজ ও পাশর্^ প্রতিক্রিয়া বিষয়ে প্রচারণা জোরদার করা; টিকা নিবন্ধনে অর্থ খরচের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা এবং এ সংক্রান্ত সকল প্রকার জটিলতার অবসান প্রয়োজনীয় ও কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা; টিকাদান কেন্দ্রে তথ্য ও পরামর্শ ডেস্ক পরিচালনা করা; নারীদের জন্য পৃথক অপেক্ষমাণ কক্ষের ব্যবস্থা করা; প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক ব্যক্তিদের সহযোগিতার জন্য লোকবল রাখা; টিকা প্রদান সংক্রান্ত যেকোনো ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতির শিকার হলে তাৎক্ষণিকভাবে অভিযোগ জানানোর ব্যবস্থা রাখা এবং এ বিষয়ে মানুষকে অবগত করা; প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে অগ্রাধিকারভিত্তিতে টিকা প্রাপ্তি সহজলভ্য করা এবং তাদেরকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন ও মানবিক মর্যাদার দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করা; এলাকায় নিবন্ধনের সুবিধা এবং দূরত্ব ও এলাকার জনসংখ্যা বিবেচনায় টিকাদান কেন্দ্র স্থাপন করতে হবে; টিকা প্রদান কর্মসূচিকে জোরদার করতে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রাখা।

আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী বলেন, ‘ঝালকাঠি জেলায় কভিড-১৯ টীকা প্রদান ও প্রাপ্তিতে কিছু সীমাবদ্ধতা থাকলেও সার্বিকভাবে সফলতা রয়েছে। প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বেশিরভাগ মানুষ টীকা গ্রহণ করতে সক্ষম হয়েছে। টীকার পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে এবং টীকা গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

মতবিনিময় সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাক ঝালকাঠির স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম তালুকদার। সভায় স্থানীয় পর্যায়ে কভিড-১৯ টিকা প্রদান কার্যক্রমে স্বচ্ছতা এবং দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠির অভিগম্যতা নিশ্চিত করতে টিআইবি’র কমিউনিটি মনিটরিং রিপোর্টের প্রেক্ষাপট বর্ণনা করেন টিআইবির সমন্বয়কারী-সিই কাজী শফিকুর রহমান। কমিউনিটি মনিটরিং প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন টিআইবির সহকারী সমন্বয়কারী (প্রোগ্রাম) মৌসুমী বিশ^াস।

সনাক সদস্য সুজিৎ কান্তি বসুর সভাপতিত্বে সভায় আলোচক হিসেবে ছিলেন জেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি ও সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ইসরাত জাহান সোনালী এবং রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কার্যকরি পরিষদের সদস্য আনোয়ার হোসেন আনু।

এছাড়া সভায় বক্তব্য রাখেন ঝালকাঠি প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী খলিলুর রহমান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো: মঈন উদ্দিন তালুকদার, ঝালকাঠি সরকারী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শেখ রাকিবুল ইসলাম, জেলা ইপিআই সুপারভাইজার জি কে মতিয়ার রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় প্রশাসন, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, স্বাস্থ্যকর্মী, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, কমিউনিটিভিত্তিক সংগঠনের প্রতিনিধি, শিক্ষার্থী, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিগণ এবং স্থানীয় সনাকের সন্মানিত সদস্যবৃন্দ, ইয়েস সদস্যবৃন্দ এবং টিআইবির কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.