mail.google
এইচ.এম ইমরান, ঝিনাইদহ থেকে :
ঝিনাইদহ শহরের আদর্শপাড়ার বকুলতলা এলাকায় তানজিলা (২০) নামে এক গৃবধূকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী ও শ্বশুর পলাতক রয়েছে। সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার সকালে সদর হাসপাতালে নিহতের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। দুপুরে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবিতে লাশ নিয়ে এলাকাবাসি শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। তানজিলা ঢাকার পপুলার হাসপাতালে সেবিকা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
নিহতের পারিবারিক সুত্র জানায়, তিন মাস আগে শহরতলীর পাগলাকানাই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল গণির মেয়ে তানজিলার সঙ্গে শহরের আদর্শপাড়ার বকুলতলা এলাকার বাকি বিল্লাহর ছেলে জুয়েলের বিয়ে হয়। তানজিলা ঢাকার পপুলার হাসপাতালের সেবিকার চাকরি করত। আর স্বামী জুয়েল ছিল বেকার। তানজিলার টাকার উপর স্বামীর পরিবারের লোকজনের লোভ ছিল। বিয়ের পর থেকে তানজিলা ও জুয়েলের মধ্যে টাকা-পয়সা নিয়ে প্রায়ই মনোমালিন্য হতো।
সোমবার বিকেলে এ নিয়ে জুয়েলসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে তানজিলার তর্ক-বির্তক হয়। একপর্যায়ে জুয়েল ও তার পরিবারের লোকজন তানজিলাকে পিটিয়ে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে প্রচার করে।
তানজিলার পিতা গণি মিয়া অভিযোগ করে বলেন, মেয়ের মৃত্যুর খবর তাদেরকে জানানো হয়নি। পরে খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সদর হাসপাতালে গিয়ে তানজিলার মরদেহ দেখতে পায়। তিনি আরো জানান, তানজিলার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি হরেন্দ্র নাথ সরকার জানান, তানজিলার লাশের ময়না তদন্ত সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে। এ ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন