ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অসহযোগিতার অভিযোগ এনে বিক্ষোভ করেছে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তাহমিনা আক্তার মোল্লার সর্মথকরা।
বৃহস্পতিবার সকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবার একই স্থানে এসে শেষ।
এ সময় মেয়র প্রার্থী তাহমিনা আক্তার মোল্লা অভিযোগ করে বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের একটি অংশ অসহযোগিতা করার কারণে পৌর ভোটে নৌকা প্রতীক পিছিয়ে গেছে। ওই নেতারা বঙ্গবন্ধু ও নৌকা প্রতীককে অবমাননা করেছে।
উল্লেখ্য, এর আগে বেসরকারি ফলাফলে জানা যায়, বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মির্জা ফয়সাল আমিন প্রায় পাঁচ হাজার বেশি ভোটে এগিয়ে আছেন। পৌর নির্বাচনে ২১ কেন্দ্রের মধ্যে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে পৌরসভার ৩টি কেন্দ্রের ফলাফল বন্ধ করে দেয়া হয়। ২১টির মধ্যে ১৮টি কেন্দ্রের ফলাফলে বিএনপির মির্জা ফয়সল আমীন ধানের শীষ নিয়ে ১৫ হাজার ৭৫৯ ভোট পেয়ে চূড়ান্ত ফলাফলের অপেক্ষায় রয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের তহমিনা আখতার মোল্লা নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১০ হাজার ৭০১ ভোট। স্থগিত ৩টি কেন্দ্রের মোট ভোট ৬ হাজার ৩৬১।
রিটার্নিং অফিসার ফজলে রাব্বী জানান, সাময়িকভাবে নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে। প্রার্থীদের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে পরবর্তী নিদের্শেনা দেয়া হবে।
তিনি জানান, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষ থেকে স্থগিত তিনটিসহ পাঁচটি কেন্দ্রে পুনঃভোট চেয়ে লিখিত দাবি জানানো হয়েছে।
উল্লেখ্য,বুধবার রাতে জেলা প্রশাসক কনফারেন্স রুমে প্রজেক্টরের মাধ্যমে নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশের সময় নৌকা মার্কার প্রার্থীর একদল সমর্থক জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে চড়াও হয়। তারা প্রজেক্টর বন্ধ করে দিয়ে নির্বাচনী কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের বের করে করে দেয়।রাত ৮ টা থেকে সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার অবরুদ্ধ ছিল।ওইসময় জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা,ম্যাজিস্ট্রেট,পুলিশ,বিজিবি ও ব্যার নিরব ভ’মিকা পালন করে।
পরে নৌকা মার্কার প্রার্থীর দাবির মূখে ২১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৫টি কেন্দ্র বাতিল করলে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা ফিরে যায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।