ঝালকাঠি প্রতিনিধি:

কোরবারনি ঈদ কড়া নাড়ছে দোরগোড়ায়। কিন্তু নলছিটি উপজেলার পশু হাটগুলো জমে ওঠেনি। উপজেলার সবচেয়ে বড় হাটটি বসে আখরপাড়ায়। এখানে বেশ কিছুদিন আগে থেকেই গরু, ছাগল পাওয়া গেলেও এখনও জমে ওঠেনি বিকিকিনি।

শুক্রবার এ পশুহাট ঘুরে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা আশা করছেন জুমার নামাজের পর থেকে বিক্রি জমে উঠবে। তবে পুরোদমে হাট লাগবে শনিবার।

স্থানীয় বিক্রেতা আবুল হোসেন (আবু) যশোরের বেনাপোল এলাকা থেকে ০৫টি গরু নিয়ে বাজারে এসেছেন। তিনি বলেন, বেচা-বিক্রি শুরুই হয়নি। খৈদ্দের (ক্রেতা) দুই একজন আসলেও দাম কইয়া চৈল্যা যায়। এখনও বিক্রি হচ্ছে না। আইজ জুমার পরে বিক্রি হবে।

স্থানীয় আরেক বিক্রেতা আমির মল্লিক সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে পাঁচটি গরু নিয়ে এ হাটে বসে আছেন। তিনি বলেন, কাল আনচি, একটাও বিক্রি করতে পারিনি। ‌

গরুর দাম জানতে চাইলে বলেন, বড় গরু (প্রায় ৩ মণ মাংস হবে) দাম হাকানো হচ্ছে ১.৫০ লাখ টাকা। তবে দামাদামি করেই বিক্রি হবে।

এদিকে উপজেলার কুলকাঠি, নাচনমহল, তালতলা ও মানপাশা গরুহাট ঘুরে দেখা যায় মূল হাটগুলোর জায়গার অনেকাংশই এখনও ফাঁকা।

তবে এখনও বিভিন্ন জেলা থেকে ট্রাকভর্তি গরু আসা অব্যাহত রয়েছে। বিক্রেতাদের আশা শুক্রবার বিকেলে কিছুটা হলেও বিক্রি শুরু হবে। বিক্রেতারা জানান, সরকারি চাকরিজীবীদের ছুটি আজ শুরু হবে। তাই বিকেলে কিছু বিক্রি হতে পারে। দু’চার জন ক্রেতা এলেও চড়া দামের কারণে কিনতে অনাগ্রহ দেখা যায়। যেই আসছেন শুধু গরু দেখে দাম শুনেই চলে যাচ্ছেন।

কুলকাঠি হাটে কোরবানির গরু কেনার জন্য নলছিটি থেকে এসেছেন মোস্তাইন বিল্লাহ। তিনি জানান, এবার গরুর দাম অনেক বেশি। বেপারীরা দাম ছাড়ছেন না। দেখি দামে পুষলে নিবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন

উলিপুরে ২১তম বৈশাখী মেলা শুরু কু‌ড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ ২০-০৪-২০২৪ কুড়িগ্রামের উলিপুরে ১০ দিনব্যাপী ২১তম বৈশাখী মেলা শুরু হয়েছে। সুপান্থ’র আয়োজনে গত শুক্রবার রাতে উলিপুর সরকারি কলেজ মাঠে এ মেলার উদ্বোধন করা হয়। মেলার উদ্বোধন ক‌রেন পৌর মেয়র মামুন সরকার মিঠু। এ সময় বক্তব‌্য রা‌খেন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাজাদুর রহমান তালুকদার সাজু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু সাঈদ সরকার, উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি) গোলাম মর্তুজা, সংগঠন‌টির সভাপতি মঞ্জুরুল সরদার বাবু প্রমুখ। মেলায় থাকবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিষয়ভিত্তিক প্রতিযোগিতা, মুক্তিযুদ্ধের আলোকচিত্র প্রদর্শনী, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলা, সন্ধ্যায় জারি, সারি, ভাওয়াইয়া ও পল্লীগীতির আসর। মেলা চলবে আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত