কুড়িগ্রাম পৌর আ’লীগের মেয়র পদে নৌকার মাঝি রাজাকারের সন্তান! নিন্দার ঝড়।।

শেয়ার করুন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
আসন্ন কুড়িগ্রাম পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সন্তান!! তৃনমূলে প্রার্থী বাছাই তালিকায় দ্বিতীয় স্থান পেলেও চুড়ান্ত তালিকায় নৌকার মাঝি হলেন রাজাকারের সন্তান কাজিউল ইসলাম। স্বাধীনতার পক্ষের আমজনতার ক্ষোভ। প্রার্থী তালিকায় ২য় স্থান অধিকারী কাজিউল কুড়িগ্রাম মহকুমা শান্তি কমিটির অন্যতম সদস্য করিমল ইসলামের পুত্র। গত নির্বাচনে একক প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রে পাঠানো হলে ও নৌকা মার্কা পায়নি বিতর্কিত বর্ণবাদী কাজিউল। এবার তৃনমূলে হেরে গেলেও কেন্দ্রে এসে পেয়েছেন নৌকার টিকিট।। এনিয়ে কুড়িগ্রাম জুড়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী সহ স্বাধীনতার পক্ষের বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
আগামী ২৮ ডিসেম্বর প্রথম পর্বের পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিলে কুুড়িগ্রাম পৌরসভার ভোটও সেদিন অনুষ্ঠিত হবে। তফসিল ঘোষণার পর থেকে কুড়িগ্রাম পৌরসভায় নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করছে।
আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের কোনো সন্তানকে মনোনয়ন তো দুরে থাক দলের প্রাথমিক সদস্য করাও নিষেধ রয়েছে। এ বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের একাধিকবার হুশিয়ারী দিয়েছেন। রাজাকারের সন্তানদের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।
তথসূত্রে জানা যায়, কাজিউল ইসলামের পিতা করিমল ইসলামের ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বিতর্কিত ভুমিকা পালন করেন। ১৯৭১ সালে তৎকালীন কুড়িগ্রাম মহকুমায় গঠিত ২৫ সদস্য বিশিষ্ট শান্তিকমিটির ২০ নং সদস্য তিনি। তথ্যসুত্রে আরো জানা যায়, ২ জুলাই ১৯৭১ সালে গঠিত এ শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন আলহাজ্ব পনির উদ্দিন আহমেদ। উলিপুর শান্তিকমিটির সেক্রেটারি গোলাম মাহমুদ চৌধুরীর বাড়ি থেকে সম্প্রতি উদ্ধারকৃত দলিলপত্রের সাথে উক্ত শান্তিকমিটির তালিকাটিও পাওয়া যায় যা আওয়ামী লীগ নেতা ও পিপি এ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকনের উত্তরবঙ্গ জাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে ।
শনিবার কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড যাচাই বাছাই করে চুড়ান্ত তালিকায় প্রকাশ করে।। তালিকায় কাজিউলের নাম দেখে ক্ষোভের আগুনে নির্বাক হয়ে পড়েন কুড়িগ্রামবাসী।। বিশেষ করে নুতুন প্রজন্ম মানতে পারছে, স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের সন্তান কিভাবে পায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন।। কুড়িগ্রাম জেলাবাসীর দাবী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নজরে এনে নুতুন সিদ্ধান্ত নিবেন।। আওয়ামীলীগের সাধারণ নেতাকর্মী সহ নুতুন প্রজন্ম স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের সন্তান কে নৌকার মাঝি মানতে পারছে না।।
এ ব্যাপারে, পৌর আওয়ামীলীগের নেতা নবারুণ চক্রবর্তী মুন, শফিকুল ইসলাম শান্ত এবং সোহেল সরকার জানান, জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বাধীনতা বিরোধী ও অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান পরিচালনা করছেন । সেখানে অনুপ্রবেশকারী ও বিতর্কিতরা পৌর নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেলেও জনগণ তাকে মেনে নেবে না। কিভাবে হলো এ-ই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত তা পুনরায় ভেবে দেখার অনুরোধ জানান নেতাকর্মীরা।।
গত মঙ্গলবার দুপুরে জেলাপরিষদ হলরুমে অনুষ্ঠিত পৌর আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় দলটির ৬ জন প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন পেতে আবেদন করেন। পৌর আওয়ামী লীগের ৭১ কাউন্সিলরের মধ্যে ৬৭ কাউন্সিলর ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।
তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপুর্ণ পৌর মেয়র প্রার্থী নির্বাচন প্রক্রিয়ায় পৌর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমান সাজু ৩২ ভোট পেয়ে দলীয় মেয়র প্রার্থী নির্বাচনে শীর্ষস্থান অধিকার করেন। এদিকে বাসদ থেকে নির্বাচিত সাবেক মেয়র পৌর আওয়ামী লীগের লীগের সেক্রটারী কাজিউল ইসলাম ৩১ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন।
দলীয় সুত্র জানায়, মেয়র প্রার্থী নির্বাচনে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৩ জনের নাম প্রেরণ করা হবে। সে মোতাবেক ভোট প্রাপ্তির ক্রমানুসারে , মোস্তাফিজার রহমান সাজু, কাজিউল ইসলাম ও সমান ভোট পাওয়ায় বর্তমান মেয়র আব্দুল জলিল ও যুবলীগের মমিনুলের নাম প্রেরণ করেন।
কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের চুড়ান্ত তালিকায় স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের বিতর্কিত বর্ণবাদী সন্তান কাজিউল ইসলাম কে নৌকার মাঝি ঘোষণা দেয়ায় মেনে নিতে পারছে না স্বাধীনতার পক্ষের আমজনতার সহ নুতুন প্রজন্ম।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *