mail.google

এইচ.এম ইমরান, শৈলকুপা, ঝিনাইদহ থেকে :

ঝিনাইদহের শৈলকুপার ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ডাউটিয়া গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ না পৌছানই আর কাদাযুক্ত কাচা রাস্তার ফলে গ্রামটিকে ভুতুড়ে বলে আক্ষায়িত করেছে সাধারন জনতা। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নে দেশের উন্নয়ন যে গতিতে এগিয়ে চলেছে ঠিক তারই পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে এই গ্রামে। জনপ্রতিনিধিরা নিয়মিত পরিবর্তন হয়, কিন্তুু পরিবর্তন হয় না এই গ্রামের অচলাবস্থা। তৈরী হয়না পাকা রাস্তা, পৌছাইনা বিদ্যুৎ সংযোগ! গ্রামের সহজ-সরল সাধারণ মানুষের ধর্য্যের সীমা ছাড়িয়ে এখন তারা নির্বিকার। অন্ধকারে থাকতে থাকতে আর কাদাযুক্ত রাস্তায় চলতে চলতে মানুষ আজ ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত। কে দেখবে এসব সমস্যা, কারা করবে এর সমাধান? যেনো এই ডাউটিয়া গ্রামের সাধারন জনতার দেখার কেউ নেই! যুগ যুগ ধরে গ্রামের অবস্থা অপরিবর্তিত থাকলেও পরিবর্তনের কোনো উদ্যোগ নেই।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উক্ত ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কুশবাড়িয়া গ্রাম সহ প্রায় প্রতিটি গ্রামে পাকা রাস্তা এবং বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। অথচ একই ইউনিয়নের ডাউটিয়া গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ ও পাকা রাস্তা নেই।
এ নিয়ে রয়েছে গ্রামের মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভ। তারা বলেন, কত মানুষের কাছে ধরণা দিয়েছি, কত মানুষকে অনুরোধ করেছি। কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে অনেকবার বলা হয়েছে। এই আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল হাই সাহেবের কাছেও ২/৩ বার দরখাস্ত দেওয়া হয়েছে।
ডাউটিয়া গ্রামের মহিউদ্দীন মৃধা জানান, ইউনিয়নের নতুন নতুন গ্রাম বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হলেও, এ গ্রামটি অন্ধকারেই থেকে গেল। বিদু্যুৎ এবং পাকা রাস্তার জন্য সে নিজে ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে-সংসদ সদস্য আব্দুল হাই সাহেবের কাছে কয়েকবার দরখাস্ত জমা দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান জানান, অতিদ্রুত ডাউটিয়া গ্রামে বিদ্যুৎ এবং পাকা রাস্তা বাস্তবায়নের লক্ষে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।