কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে প্রসব ব্যথায় চিৎকার করে চোরের থেকে রক্ষা পেল ছাগল

প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম:

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে বেড়েই চলছে চুরির ঘটনা। কারো রান্নাঘরের গ্যাসের চুলা, গ্যাস সিলিন্ডার, রাইস কুকার, প্রেসার কুকার, কারো বাইসাইকেল কারো আবার বাড়ীর পোষা ছাগল চুরি যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। এমনকি মসজিদের মাইকের মেশিন, দানবাক্সের টাকা এবং মসজিদে নামাজরত মুসল্লির বাইসাইকেলও রেহাই পাচ্ছে না চোরের হাত থেকে।

এমন পরিস্থিতিতে সোমবার ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকালে উপজেলার শাহবাজার এলাকায় একটি গর্ভবতী ছাগল চোরের হাত থেকে রক্ষা পেয়ে তিনটি বাচ্চা প্রসব করার ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসীর ধারণা চোর গর্ভবতী ছাগলটিকে চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় ছাগলটি প্রসব বেদনায় চিৎকার করতে থাকে। চিৎকারের ফলে ধরা পড়ার ভয়ে চোর ছাগলটিকে রাস্তায় ছেড়ে দিয়ে যায়। আর চুরি যাওয়ার থেকে রক্ষা পেয়ে তিন রঙ্গের তিনটি বাচ্চা প্রসব করেছে ছাগলটি।

জানা গেছে, শাহবাজার এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুল্ল্যাহ মিয়ার দ্বিতীয় পুত্র ফরিদ উদ্দিনের স্ত্রী মুন্নি বেগম পরিবারে সচ্ছলতা আনতে ছাগল পালন শুরু করেন। কিছুদিন পরেই ছাগলটি গর্ভ ধারনে সক্ষম হয়। এদিকে ছাগলটি গর্ভবতী হওয়ায় তাকে ঘিরে নানা স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন মুন্নি বেগম। সবকিছু ঠিকঠাকই ছিল সময়ের সাথে সাথে মুন্নি বেগমও এগিয়ে যাচ্ছিলেন স্বপ্ন পূরণের পথে। কিন্তু সোমবার সকালে রাস্তার ধারে বাড়ীর উঠানে ছাগলটি দেখতে না পেয়ে চরম হতাশাগ্রস্ত হয়ে প্রতিবেশীদের বাড়ীতে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। তার মনে শঙ্কা জাগে স্বপ্ন ভঙ্গের। বিকালের দিকে তিনি জানতে পারেন বাড়ী থেকে দুই প্রায় কিলোমিটার দূরে নওদাবশ গ্রামে একটি ছাগল পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে স্বামীকে নিয়ে সেখানে গিয়ে দেখেন তার পোষা ছাগলটি তিনটি বাচ্চা প্রসব করেছে। ওই এলাকার গৃহিণী কুন্তী রানী ও বিপ্লবী বালা বলেন, ছাগলটি প্রসব বেদনায় বাড়ীর উঠানে ছটফট করতে করতে একে একে তিনটি বাচ্চা প্রসব করে। আমরা কার ছাগল তা জানতাম না। ঘটনাটি জানাজানি হলে খবর পেয়ে মুন্নি বেগম এসে ছাগলটি তার বলে সনাক্ত করে। তার স্বামী আমাদের সবাইকে মিষ্টিমুখ করিয়ে বাচ্চাসহ ছাগল নিয়ে গেছে।

এর আগে গত শুক্রবার শাহবাজার এলাকার আব্দুল খালেকের একটি খাসি ছাগল, শনিবার বিকেলে শাহবাজার মসজিদ চত্বর থেকে একটি বাইসাইকেল, রবিবার রাতে উত্তর বড়ভিটা জামে মসজিদের দান বাক্স ভেঙ্গে চুরির ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। তাছাড়াও কয়েকদিন আগে শাহবাজার জামে মসজিদ, ঘোগারকুটি জামে মসজিদ, উত্তর বড়ভিটা জামে মসজিদের মাইকের মেশিন এবং দানবাক্সের টাকা চুরিসহ বিভিন্ন জনের রান্না ঘরের আসবাবপত্র চুরি যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

চুরি রোধকল্পে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.