আব্দুল হাকিম রাজ,মৌলভীবাজারঃ
মৌলভীবাজার শহরের একটি বাসায় মালিকের অনুপস্থিতিতে ৬ জন গৃহকর্মীর মধ্যে ৩ জন ড্রাইসেল ব্যাটারীর রাসায়নিক পদার্থ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। বিষয়টি টের পেয়ে অন্য গৃহকর্মীরা চিৎকার শুরু করলে পাশের বাসার লোকজন এসে বিকল্প চাবি দিয়ে বাসার মূল দরজা খুলে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। অপর তিন গৃহকর্মীকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। গতকাল মৌলভীবাজার শহরের চৌমোহনায় অবস্থিত শাহ মোস্তফা গার্ডেন সিটির ৮ম তলায় এই ঘটনা ঘটে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, এই অ্যাপরর্টমেন্টে ভাড়া থাকেন পাসপোর্ট অফিসের (বর্তমানে টাঙ্গাইল) সহকারি পরিচালকের স্ত্রী ইভা, ছোট দুই শিশু সন্তান ও এক ভাগ্নে। তাদের বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন ৬ জন গৃহকর্মী। এর মধ্যে ৫ জন নারী একজন ছেলে শিশু। শুক্রবার সকালে হাবিবুর রহমানের স্ত্রী (গৃহকর্মীর ভাষায় ইভা আন্টি) দুই সন্তান নিয়ে ঢাকায় চলে যান। গৃহকর্মীদের ভিতরে রেখে বাসার প্রধান দরজা তালাবদ্ধ করে রেখে যান। গৃহকর্মী সাহেনা (২০) ও শাহানা (২৮) জানায় সকাল সাড়ে আটটার দিকে বাচ্চাদের খেলনা পরিস্কারের জন্য নিয়োজিত গৃহকর্মী রুবি (১৫), মালা (১৮) ও আমিনা (১৫) নিজেদের মধ্যে ঝগড়া করে এক পর্যায়ে খেলনা গাড়ির ব্যাটারী ভেঙ্গে পানি মিশিয়ে খেয়ে ফেলে। তিনজনের মুখ দিয়ে ফেনা ও রক্ত বের হতে দেখে তারা চিৎকার দেয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে এবং কেয়ার টেকারের নিকট থেকে বিকল্প চাবি দিয়ে দরজা খুলে তাদের উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিকালে হাসপাতালে কথা হয় তিন গৃহকর্মীর সাথে। তারা জানায় ঝগড়া করে প্রথম রুবি ব্যাটারী ভেঙ্গে খায়, পরে বাকি দু’জন খায়। আর কিছু তারা বলতে পারে না। মৌলভীবাজার মডেল থানার পুলিশ কর্মকর্তা এস আই আমিনুল ইসলাম জানান, এখন তিনজন হাসপাতালে সুস্থ আছে। বাকি তিন গৃহকর্মীকে থানায় নিরাপত্তা হেফাজতে রাখা হয়েছে। গৃহকর্তা আসারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ দিকে গৃহকর্তা হাবিবুর রহমানের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।