আব্দুল হাকিম রাজ,মৌলভীবাজারঃ
মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের বেতাহুঞ্জা গ্রামে বিয়ের ঘটকের টাকা নিয়ে দুই গোষ্টির লোকজনের মধ্যে দুই দিনের দুই দফা সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩৫ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশংকা জনক। এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়,উক্ত গ্রামের ফারুক মিয়ার কন্যা সুমা বেগমের সাথে কালার বাজার এলাকার পাত্রের বিয়ে সম্পন্ন হয় গত রবিবার। বিয়েতে ঘটক হিসাবে পাত্রীর মামা একই গ্রামের গফুর মিয়ার পুত্র আব্দুল আহাদ উভয়পক্ষের সাথে কথাবার্তা বলে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেন। ঘটক আব্দুল আহাদ বিয়ের পুর্বে পাত্র পক্ষের কাছে ঘটকালির জন্য বিশ হাজার টাকা দাবী করলে পাত্র পক্ষ তা বিয়ের দিন দেবার আশ্বাস দেন। কিন্তু বিয়ে শেষ হবার পরদিন সোমবার ঘটক আব্দুল আহাদ তার ঘটকালির টাকা না পেয়ে পাত্র পক্ষের একজনকে মারধর করে। এ নিয়ে সোমবার একদফা আছির মিয়ার গোষ্টি ও আব্দুল আহাদের গোষ্টির লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে স্থানীয়রা তা বিচারে মিমাংসা করার কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করেন। কিন্তু মঙ্গলবার (৭ জুন) পুণরায় আগের দিনের ঘটনার জের ধরে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দীর্ঘ ৩ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে আব্দুল আহাদের গোষ্টির আব্দুল আহাদ(৪০) মিছকার মিয়া(৪৫) মোমিন(৩০) সাবুল(২৫) বাসির(৩০) ছাতির(৩৫) খয়রুদ্দিন(২৬) নাসির(৩০) সহ ২৫ জন আহত হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানায়। এদিকে আছির মিয়ার গোষ্টির বদরুল ইসলাম প্রতিবেদককে মোবাইলে জানান, ইফি বেগম(১৩) জাহানারা বেগম(৬৫) জিয়াউর(২৫) নুরুল হক(২৭) জাঙ্গীর(২০) এবং বদরুল ইসলাম(৩৫) সহ তাদের ও ১০ জন লোক আহত হয়েছে। এর মধ্যে ঘটক আব্দুল আহাদের অবস্থা আশংকা জনক বলে জানা গেছে। তাকে ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং বাকিরা মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতাল সহ প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছে।রাজনগর থানার এ,এস,আই স্বাধীন জানান,সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে তবে রাত ৮ ঘটিকা পর্যন্ত থানায় কোন পক্ষই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনাই।এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে,যেকোন সময় আবার ও বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী আশংকা প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।