রানীংকৈল ( ঠাকুরগাও ) সংবাদদাতা ঃ-ঠাকুরগাওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার পলী উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তার বিরুদ্বে অপ্রধান খাদ্যশস্য উৎপাদন,সংরক্ষন,বাজারজাত করনের প্রশিক্ষনের সন্মানীর টাকা গোপনে আর্ত¡সাত করার অভিযোগ উঠেছে॥
সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী পলী উনয়ন বোর্ডের মাধ্যমে দেশের কৃষকদের মধ্যে দল গঠন করে অপ্রধান খাদ্যশস্য উৎপাদন,সংরক্ষন,বাজারজাত করনে উদ্ভুদ করার জন্য প্রশিক্ষন দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয় । এখানে প্রশিক্ষানার্থীরা ৫দিন ব্যাপী সকাল ৯টা-১.০টা পর্যন্ত প্রশিক্ষন গ্রহন করবে । সে আলোকে রানীশংকৈল উপজেলায় এ কার্যক্রম চলছে। অভিযোগ উঠেছে গত ১২জুন থেকে১৭জুন প্রর্যন্ত অপ্রধান খাদ্যশস্য,উৎপাদন, সংরক্ষন, বাজারজাতকরন প্রশিক্ষনে ক্ষ’দ্র বাশবাড়ী দলের ৪০জন সদস্যকে ৫দিন ব্যাপী সকাল ৯টা-১টা পর্যন্ত প্রশিক্ষন দেওয়ার জন্য সিলেক্ট করা হয়। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রশিক্ষানর্থীরা বিনা পয়সায় প্রশিক্ষন গ্রহন করবে এবং সন্মানী হিসেবে জনপ্রতি ১৫০টাকা,এবং ৪০টাকা সমপরিমানের নাস্তা পাবেন।কিন্তু উপজেলা পলী উন্নয়ন অফিসার রাজিউর রহমান এই দলের ৪০ জন সদস্যর কাছে প্রশিক্ষন শুরুর আগেই জনপ্রতি ১৫০ টাকা করে নেন,সঞ্চয় প্রশিক্ষনের খাতা,কলমসহযাবতীয় খরচের জন্য,এছাড়াও প্রশিক্ষাণার্থীর সন্মানী ৫ দিনের মোট ৭৫০টাকা থেকেও তিনি ২৫০টাকা করে জনপ্রতি সঞ্চয় বাবদ কেটে রেখেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে যা নেওয়ার কোন ধরনের সরকারী বিধি-বিধান নেই। এছাড়াও তিনি প্রতিদিন গড়ে ১ঘন্টা করে প্রশিক্ষন দেওয়াইছেন বলে অভিযোগ রয়েছে ॥এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে প্রশিক্ষন শেষে সার্টিফিকেট ও সন্মানী বিতরনের সময় কর্মকর্তা রাজিউর রহমান ও সদস্যদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয় বলে একটি বিশ্বস্ত সুত্রে জানা গেছে। এ বিষয়ে পলী উন্নয়ন কর্মকর্তা রাজিউর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি রমজান মাসের কারণে নাস্তা দেওয়া হয় নি মর্মে জানিয়ে অন্য অভিযোগগুলো অস্বীকার করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।