mail-google

এইচ.এম ইমরান, শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) থেকে :

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব কাজী আশরাফুল আজম সংবাদ সম্মেলন করেছেন। সোমবার সকালে চৌরাস্তার মোড়ে শৈলকুপা প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর খায়রুল ইসলাম মুকুলসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মেয়র বলেন, গত ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ ইং শনিবার ‘দৈনিক ইনকিলাব’ পত্রিকার পেছনের পাতায় “মেয়র পুত্রের অত্যাচারে অতিষ্ঠ শৈলকুপা, রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন সংখ্যালঘুরা” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। উক্ত পত্রিকায় তাকে, তার ছোট ছেলে রাজিব, শ্যালক রাসু কাজী ও কর্মী আব্দুর রহিমকে জড়িয়ে যে সংবাদ পরিবেশন করা হয়। তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যে প্রনোদিত বলে তিনি দাবী করেন। তাদেরকে মানহানী করার লক্ষেই এ ধরণের মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, যার কোন ভিত্তি নেই।

শুধুমাত্র মানহানীর লক্ষেই চাঁদাবাজী, হামলা, লুট, ধর্ষণ, পুলিশ পেটানো, অনৈতিক সম্পর্কের ভিডিও ধারণ, পত্রিকা পুড়ানো, প্রেসক্লাব দখল, ভয়ভীতি দেখানো, মহড়া, সংখ্যালঘুদের কাছে চাঁদা দাবী, ভোট ডাকাতি ইত্যাদি তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। যা কিনা তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের বহি:প্রকাশ বলে তিনি দাবী করেন।

প্রকাশিত সংবাদে একাধিক ব্যক্তিকে জড়িয়ে যে সকল মানহানিকর অভিযোগ তুলে ধরা হয়েছে সংবাদপত্র ও সংবাদদাতার কাছে তার কোন প্রমান নেই বলেও তিনি দাবী করেন।

যে ধরনের মিথ্যা ও আপত্তিকর তথ্য তুলে ধরা হয়েছে তা তদন্ত করে সংবাদপত্র ও সংবাদদাতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট তিনি আবেদন জানান।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, জনগনের ভালোবাসায় ও তাদের ভোটে তিনি বার বার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। জনগনের ভালো-মন্দ দেখার দায়িত্বও তার। জনগন সবসময় তার পাশে আছে, এটাই তার শক্তি। যা কিনা তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের কাছে হিংসার কারন। প্রতিপক্ষরা তার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে রাজনৈতিক মর্যাদায় ঈর্শ্বাণিত হয়ে বিভিন্ন কুৎসা রটাতে ব্যস্ত রয়েছে।

এদিকে প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখিত ষষ্টিবর সাহা, তার ভাই বাসুদেব ও ডাক্তার মামুনসহ যে সকল ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদাবাজীর অভিযোগ আনা হয়েছে। তারা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এ ধরনের কোন ঘটনা তাদের সাথে ঘটেনি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।