mail.google
ঢাকা অফিসঃ
রামপালে সুন্দরবন ধ্বংসকারী কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিরুদ্ধে দেশের সর্বস্তরের জনগন ঐক্যবদ্ধ হয়েছে দাবী করে লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেছেন সরকার দেশের স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে ভারতের তাবেদারী করছে। জনগনের দাবী উপেক্ষা করে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মানে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সার্বভৌমত্বেও জন্য অশনি সংকেত। ভারতের স্বার্থে, ভারতের অর্থে সুন্দরবনের অতিশন্নিকটে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিমার্নের ষড়যন্ত্র জনগন প্রতিহত করবে।
তিনি আজ শুক্রবার বেলা ১১ টায় একুশে মিলনায়তনে সুন্দরবন রক্ষায় দেশব্যাপী প্রতিবাদ কর্মসুচী ঘোষনা করেন।

তিনি বলেন, ভারতের দেশপ্রেমিক জনগনের প্রতিবাদের মুখে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে নির্মান করতে ব্যার্থ হয়েছে ভারত সরকার। বর্তমান ভোটার বিহীন সিলেকশনের সরকার ক্ষমতায় থাকতেই গোপন চুক্তির বিনিময়ে দাসখত দিয়ে অবৈধ কর্মকান্ড করছে। দেশপ্রেমিক ও জাতীয়তাবাদী শক্তিকে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র ও মানুষের নিরাপদ জীবন যাপনের স্বর্থে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলা সময়েরদাবী। শেখ হাসিনা সুন্দরবন নিয়ে জাতির সাথে তামাসা করছে। তার বক্তব্য ভারতীয় তোষননীতির নগ্ন বহিঃপ্রকাশ। শুধুমাত্র ক্ষমতায় থাকতেই জাতীয় স্বার্থ উপেক্ষা কওে জন আকাংখা ভুলন্ঠিত করেছে। শেখ মুজিব বেচেঁ থাকলে আজ সুন্দবন রক্ষায় বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল ঘোষনা করতেন। কেননা মুক্তিযুদ্ধের পরে শেখ মুজিবের হুংকারে বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় সৈন্য ও দখলদার বাহীনি চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। ইন্দিরা গান্দির রক্ত চক্ষু ও নিষেধ উপেক্ষা করে ওআইসির সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন। তাই দেশপ্রেমিক শক্তিকে শেক হাসিনা দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র মোকালোয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নেতৃত্বে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার আহবান জানাই।
লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পার্টির মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট ফারুক রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মাহমুদ খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন,আর্ন্তজাতিক সম্পাদক খোন্দকার মিরাজুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক আবদুর রহমান খোকন, ছাত্রমিশন সভাপতি কামরুল ইসলাম সুরুজ প্রমুখ।

কর্মসুচির মধ্যে রয়েছে, ৮ সেপ্টেম্বর নারায়নগঞ্জে প্রেসক্লাব, ১৭ সেপ্টেম্বর কুমিল্লায় প্রেসক্লাব, ২২ সেপ্টেম্বর ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাব, ৩০ সেপ্টেম্বর গাজিপুরে জয়দেবপুর চৌরাস্তা, ৫ অক্টোবর সিলেটে, ১৫ অক্টোবর চট্টগ্রামে প্রেসক্লাব, ২০ অক্টোবর বরিশালে টাউন হলে সংহতি সমাবেশ ও ২২ অক্টোবর খুলনায় সুন্দরবন বাচাঁও জাতীয় কনভেনশন অনুষ্ঠিত হবে। কর্মসুচীতে লেবার পার্টির ও ২০ দলীয় জোটের নেতৃবর্গ উপস্থিত থাকবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।