ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি॥ ইউটিউবে প্রচারিত ২ বছর পূর্বেও এক মারপিটের ঘটনায় ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশ প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

২০১৪ সালে ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক ইন্সষ্টিটিউট এর ছাত্রশিবিরের এক ছাত্রাবাসে স্থানীয় ছাত্রলীগের একদল উৎশৃংখল যুবক হামলা চালায়। ছাত্রলীগ কর্মী মেহেদীর নেতৃত্বে কয়েক যুবক শামীম নামের ছাত্রশিবিরের ওই কর্মীকে লাঠি দিয়ে বেধরক মারপিট করে।পরে ছাত্রলীগের কর্মীরা ছাত্রশিবিরের বেশ কয়েকজন কর্মীকে রামদা,হাসুয়া ও দলীয় কাগজপত্র সহ আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

এদিকে দীর্ঘ ২ বছর পর আজ কে বা কারা মারপিটের ওই ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করে।ওই ভিডিও দেখতে পেয়ে অনেকে তা ফেসবুকে শেয়ার করে।এভাবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলোতে ছড়িয়ে পড়ে।

মারপিটের ওই ভিডিওটি পুলিশনেরও দৃষ্টি এড়ায় নি।তার া দেখতে পেয়ে পুলিশ প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে পুলিশ সুপার পরহাত আহম্মদ সদর থানার ওসি মশিউর রহমান ঠাকুরগাঁও পলিটেকনিক ইন্সষ্টিটিউট পরিদর্শন করেছেন এবং কলেজের অধ্যক্ষ সহ বেশ কয়েকজন শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলেছেন। কলেজ কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার জানান,যে ছেলেটি নির্যাতিত হচ্ছে তার নাম শামীম এবং মারপিটকারি যুবকদের নেতার নাম মেহেদী।তারা ইতোমধ্যে সেখানে লেখাপড়া শেষ করে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন এবং চাকুরী করছেন।তিনি আরো জানান,২ বছর পূর্বের এ ঘটনা ইউটিউবে আপলোড করায় তা ভাইরাল হিসেবে ছড়িয়ে পড়েছে।কাজেই নির্যাতনের শিকার শামীম আবেদন করলে যথারীতি মামলা দায়ের করা হবে। তিনি আরো জানান, শামীমকে পাওয়া না গেলে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করা হবে।

তিনি আরো জানান,ভিক্টিম ও মারপিটকারী মেহেদী ও তার সহকর্মীদের নাম ঠিকানা বের করার চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।