index
ঠাকুরগাঁও থেকে ॥ ৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও হানাদার মুক্ত দিবস । ১৯৭১ সালের এইদিনে ঠাকুরগাঁও মহকুমা প্রথম শত্রুমুক্ত হয়। মুক্তিযোদ্ধা ও সর্বস্তরের জনগন ওই দিন ভোরে ঠাকুরগাঁও শহরে প্রবেশ করে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেয়। শুরু হয় বিজয়ের উল্লাস।

২৭ মার্চ পাক বাহিনীর হাতে প্রথম শহীদ হয় রিক্সা চালক মোহাম্মদ আলী। পরদিন ২৮ মার্চ ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি উচ্চারণ করায় শিশু নরেশ চৌহানকে গুলি করে হত্যা করে পাকবাহিনীর সদস্যরা। ২৯ মার্চ ঠাকুরগাঁও ইপিআর এর সুবেদার কাজিম উদ্দিন সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে পরামর্শ করে হাবিলদার বদিউজ্জামানের সহায়তায় অস্ত্রাগারে হামলা চালায়। তারা সমস্ত অস্ত্র বাঙ্গালী সেনাদের হাতে তুলে দিয়ে বিদ্রোহ ঘোষনা করে। তার নির্দেশে পাকিস্তানী সেনা অফিসারদের গুলি করে হত্যা করা হয়। ফলে ব্যাটালিয়ান হেড কোয়ার্টার পুরোপুরি বাঙ্গালীদের দখলে চলে আসে। তখন থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের প্রশাসন পরিচালিত হতে শুরু করে তৎকালিন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ফজলুল করিমের নির্দেশে। এসময় ১০টি প্রশিণ ক্যাম্প চালু করা হয়। পাকিস্তানী বাহিনীকে ঠাকুরগাঁওয়ে ঢুকতে না দেওয়ার জন্য ২০টি জায়গা নির্ধারন করে প্রতিরোধের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়। ১০ এপ্রিল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের সঙ্গে অন্যান্য মহকুমার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সৈয়দপুরে পাকিস্তানী সেনারা শক্ত ঘাটি করে এগিয়ে আসতে শুরু করে। অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পাক সেনাদের সঙ্গে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের। তখন সংগ্রাম কমিটি ১৩ এপ্রিল তাদের কন্ট্রোল রুম ও ২০টি প্রতিরোধ ক্যাম্প তুলে নিয়ে সীমান্তে অবস্থান নেয়। নেতৃবৃন্দ শহর ছেড়ে চলে যায়।

১৫ এপ্রিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাক বাহিনীর দখলে চলে যায় ঠাকুরগাঁও। পাক সেনারা ১০টি ট্রাক ও ৮টি জিপে করে মুহুর্মুহু সেল বর্ষণ করতে করতে ঠাকুরগাঁও শহরে ঢুকে পড়ে। পাশ্ববর্তী পঞ্চগড় জেলার তেতুলিয়াকে কেন্দ্র করে ১৫০ বর্গমাইলের ১টি মুক্তাঞ্চল গড়ে উঠে। সেখানে পাক বাহিনী কখনও ঢুকতে পারেনি। সেখান থেকেই পরিচালিত হয় চুড়ান্ত লড়াই। শুরু হয় হত্যা, ধর্ষন, নির্যাতন, লুটপাট আর বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনা।  আওয়ামীলীগের ঘাটি বলে পরিচিত ঠাকুরগাঁওয়ের ইসলাম নগর থেকে ছাত্র নেতা আহাম্মদ আলী, সহ ৭ জনকে হানাদার বাহিনী ঠাকুরগাঁও ক্যাম্পে আটক করে রাখে। পর বেয়নেট চার্জ করে হত্যার পর তাদের লাশ শহরের টাঙ্গন ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে গণকবর দেয়। এভাবে তারা রুহিয়া থানার রামনাথ হাট, ফাঁড়াবাড়ী,রোড,ভাতারমারি ফার্ম, ভোমরাদহ ও বালিয়াডাঙ্গী এলাকায় গনহত্যা চালায়।

সবচেয়ে বড় বর্বরোচিত গণহত্যাকান্ড চালায় সদর উপজেলার জাঠিভাঙ্গা এলাকায়। ১৭ এপ্রিল সেখানে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা ২ হাজার ৬শ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে পাথরাজ নদীর তীরে গুলি করে হত্যা করে। এদিনে জগন্নাথপুর, গড়েয়া শুখাপনপুকুরী এলাকার কয়েক হাজার মুক্তিকামী মানুষ ভারত অভিমুখে যাওয়ার সময় স্থানীয় রাজাকাররা তাদেরকে আটক করে মিছিলের কথা বলে পুরুষদের লাইন করে পাথরাজ নদীর তীরে নিয়ে যায় এবং পাক হানাদাররা ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে  তাদের। স্বামী হারিয়ে সে দিনের বিভৎস ত নিয়ে এখনও বেঁচে আছে ৪ শতাধিক বিধবা ।

দ্বিতীয় গণহত্যা চালানো হয় রানীশংকৈল উপজেলার খুনিয়াদিঘীর পাড়ে। মালদাইয়া বলে পরিচিত স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকবাহিনী হরিপুর ও রানীশংকৈল উপজেলার নিরিহ লোকজনকে ধরে নিয়ে যেতো ওই পুকুরের পাড়ে। সেখানে একটি শিমূল গাছে সাথে হাতে পায়ে লোহার প্যারেক গেঁথে দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের খবর জানতে বর্বর নির্যাতন চালাতো লোকজনের উপর। তারপর লাইন করে দাঁড় করিয়ে সাধারন মানুষকে পাখির মত গুলি করে হত্যা করা হতো। দিনের পর দিন গণহত্যায় মানুষের রক্তে এক সময়  লাল হয়ে উঠে ওই পুকুরের পানি। তাই পরবর্তিতে এ পুকুর খুনিয়াদিঘি নামে পরিচিত হয়ে উঠে।

ঠাকুরগাঁওয়ে মুক্তি বাহিনীর সাথে পাকিস্তানী বাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধ শুরু হয় জুলাই মাসের প্রথম দিকে। প্রশিন প্রাপ্ত গেরিলারা হানাদার বাহিনীর ঘাটির উপর আক্রমন চালিয়ে ব্যাপক তি সাধন করে। বেশ কিছু ব্রীজ ও কালভার্ট উড়িয়ে দেয় তারা। দালাল রাজাকারদের বাড়ি ও ঘাটিতে হামলা চালায়। নভেম্বর মাসের ৩য় সপ্তাহ থেকে মুক্তিযোদ্ধারা ব্যাপক অভিযান চালায়। ২১ নভেম্বর হতে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য যুদ্ধ হয় বালিয়াডাঙ্গী, পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর থানা অঞ্চলে। এ যুদ্ধে বেশির ভাগ ফলাফল মুক্তি বাহিনীর অনুকুলে আসে।

মুক্তি বাহিনীর যৌথ অভিযানে পঞ্চগড় মুক্তিবাহিনীর দখলে আসলে পাকবাহিনীর মনোবল ভেঙ্গে যায়। এরপর ভারতীয় মিত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনীর যৌথ আক্রমন শুরু হয় ঠাকুরগাঁও অঞ্চলে। রণাঙ্গণে পাকিস্তানী বাহিনী পর্যুদস্ত হয়ে পড়ে। মিত্রবাহিনী যাতে ঠাকুরগাঁও দখল করতে না পারে সেজন্য পাকসেনারা ৩০ নভেম্বর ভূল্লী ব্রীজ উড়িয়ে দেয়। তারা সালন্দর এলাকায় সর্বত্র বিশেষ করে ইু খামারে মাইন পুতে রাখে। মিত্রবাহিনী ভূলী ব্রীজ সংস্কার করে ট্যাংক পারাপারের ব্যবস্থা করে।

১ ডিসেম্বর ভূল্লী ব্রীজ পার হলেও মিত্রবাহিনী  যত্রতত্র মাইন থাকার কারণে ঠাকুরগাঁও শহরে ঢুকতে পারেনি। ওই সময়  শত্রুদের মাইনে ২টি ট্যাংক ধ্বংস হয়ে যায়। এরপর এফ এফ বাহিনীর কমান্ডার মাহাবুব আলমের নেতৃত্বে মাইন অপসারন করে মিত্রবাহিনী ঠাকুরগাঁওয়ের দিকে অগ্রসর হয়। ২ ডিসেম্বর সারারাত প্রচন্ড গোলাগুলির পর শত্রুবাহিনী ঠাকুরগাঁও থেকে পিছু হটে। ৩ ডিসেম্বর ভোর রাতে শত্রুমুক্ত হয় ঠাকুরগাঁও। ওই রাতেই মুক্তি বাহিনী ও সর্বস্তরের জনগন মিছিল সহ ঠাকুরগাঁও শহরে প্রবেশ করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেয়।

শহীদদের স্বরণে টাঙ্গন নদীর পাড়ে অপরাজয়’৭১, শহরের প্রেসকাবের সামনে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামফলক, শুখানপুকুরীর জাটিভাঙ্গা, রানীশংকৈলের খুনিয়াদিঘি, ও বড় মাঠে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান করা হলেও শহীদের সন্তান ও তাদের পরিজনদের পুনর্বসান করা হয়নি।
এ ব্যাপারে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জীতেন্দ্র নাথ রায় জানান,বর্তমান সরকার কেন্দ্রীয়ভাবে যেমন স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার আলবদরদের বিচার করা হচ্ছে জেলা পর্যায়েও যেন ট্রাইবুনাল গঠন করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।