কুড়িগ্রামের কচাকাটা সীমান্তে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারীকে পার করে দিল বিএসএফ

ভুরুঙ্গামারী(কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা
কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার কেদার ইউনিয়নের ঢলুয়াবাড়ি সীমান্ত দিয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারীকে পারে করে দেয় বিএসএফ। স্থানীয়রা জানান, ভারতের আসাম রাজ্যের ধুবরী জেলার গোলগঞ্জ থানার কেদার ক্যাম্পের বিএসএফ সোমবার সকাল ৯টার দিকে ৪৮ নং গেট খুলে এক মানসিক ভারসম্যহীন নারীকে বাংলাদেশের দিকে ঠেলে দেয়। এসময় আসতে না চাইলে আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার ১০১৯ এর সাব পিলার ৩ এর নিকট দিয়ে মারধোর করে ওই নারীকে পার করে দেয়ার চেষ্টা করে বিএসএফ। পরে বিষয়টি টের পেয়ে সীমান্তে কাজ করা কৃষক এবং স্থানীয় লোকজন প্রতিরোধ গড়ে তোলে এবং বিজিবিকে খবর দেয়। এস সময় ওই নারী কাটা তারের বাইরে ভারতের ১০০ গজ অভ্যন্তরে দাড়িয়ে থাকে। পরে বিজিবি এসে পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানান। কয়েক ঘন্টা পর পতাকা বৈঠকের সারা দেয় বিএসএফ। পতাকা বৈঠকে ভারতের পক্ষে নেত্রিত্ব দেন বিএসএফ কেদার ক্যাম্পের এসি ধর্মেন্দ্র রায় এবং বাংলাদেশরে পক্ষে নেত্রিত্ব দেন ২২ বিজিবির কেদার কম্পানি কমান্ডার আবদুস সবুর।আন্তর্জাতিক সিমানা পিলার ১০১৯ এর সাব পিলার ৩ এর শূণ্য রেখায় অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে ওই নারীকে বাংলাদেশী বলে দাবী করে বিএসএফ। ২২বিজিবির কেদার কম্পানি কমান্ডার আব্দুস সবুর জানান, প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচেছ ওই নারী বাংলাদেশী। তথ্য যাচাই হচেছ উপযুক্ত প্রমান পেলে তাকে নিয়ে যাওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *