রাজীবপুরের মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভবন নিমার্ণের স্থান নির্ধারনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ

রাজীবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নতুন ভবন এবং গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণে একটি ভূমিদস্যু পরিবার বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট এলাকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আনুর ছোট ভাই ভূমিদস্যু রুহুল আমিন তার লোকজন নিয়ে মিস্ত্রি শ্রমিকদের মারধোর করে তাড়িয়ে দেয়। এ ব্যাপারে ভূমি অফিসের পক্ষ থেকে গতকাল বৃহষ্পতিবার ঢুষমারা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নতুন ভবন নির্মাণ এবং সরকারের গৃহীত গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণ করে দেয়ার লক্ষে ৭৫ নং নয়াচর মৌজার এক নম্বর খাস জমি চিহ্নিত করণ এবং সয়েল টেষ্টের জন্য জায়গা নির্ধারণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি)। এ অবস্থায় সয়েল টেষ্টের প্রকৌশলী ও গৃহ নির্মাণ শ্রমিক মিস্ত্রি কাজ করতে গেলে তাদেরকে মারপিট করে তাড়িয়ে দেয় ওই ভূমিদস্যু পরিবার। এসময় ওই ভূমিদস্যু রুহুল আমিন হুমকি দিয়ে ঘোষনা দেয় ওই জমিতে কোনো ভূমি অফিস ভবন নির্মাণ করতে দেয়া হবে না।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন সরকারি খাস খতিয়ানের ওই জমি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ ভাবে দখল করে আছে অভিযুক্ত ভূমিদস্যু। স্থানীয় ভাবে তারা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পায় না। সরকারি জমিতে গৃহহীনদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ গ্রহণ করার ফলে গৃহহীন অসংখ্য পরিবার আশার আলো দেখছিল। এ ব্যাপারে অভিযোগকারি উপজেলা ভূমি অফিসের নাজির-কাম ক্যাশিয়ার শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি জমিতে সরকারি কাযক্রমে বাধা দেওয়া ও মারপিটের অপরাধে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এখন যা করার থানা পুলিশ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অভিযুক্ত ভূমিদস্যু রুহুল আমিন বলেন, ‘ওই জমি আমাদের ভোগদখলীয়। দীর্ঘদিন ধরে সেখানে আমরা হালচাষ করছি। এখন জোর করে দখলে নিতে চায় উপজেলা প্রশাসন।’
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নবীরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি কাজে বাধা দেয়ার সঙ্গে যারা জড়িত তাদেরকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’ ঢুষমারা থানার অফিসার ইনচার্জ জানান, আমরা ওই জায়গা পরিদর্শন করেছি। থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *