পুনাক সভানেত্রীর উদ্যোগে চাকরি পেলেন প্রতিবন্ধীত্ব জয়ী শাহিদা

মনজুরুল ইসলাম,এশিয়ান বাংলা নিউজঃ
শাহিদা খাতুন, শারীরিক প্রতিবন্ধী। জন্ম থেকেই তার এক হাত, দুই পা নেই। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা নিয়েই চালিয়ে যাচ্ছেন জীবন যুদ্ধ। লেখাপড়া করেছেন, স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। এক হাতেই শিখেছেন হস্তশিল্প ও সেলাইসহ বিভিন্ন কাজ। অদম্য শাহিদার পাশে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির (পুনাক) সভানেত্রী জীশান মীর্জা। তাঁর ঐকান্তিক উদ্যোগেই চাকরি পেয়েছেন শাহিদা।
শাহিদার বাড়ি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামে। বাবা রফিউদ্দিন মুদি দোকানি। তার ছয় সন্তানের মধ্যে শাহিদা চতুর্থ। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা নিয়েই ২০১৫ সালে যশোর সরকারি এম এম কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স পাস করেছেন শাহিদা। উচ্চশিক্ষা অর্জন করেও চাকরি না পাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন তিনি।
শাহিদাকে নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর তা দৃষ্টি কাড়ে পুনাক সভানেত্রীর। তিনি তাৎক্ষণিক শাহিদার পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। পুনাক সভানেত্রীর উদ্যোগে যশোরের নওয়াপাড়ায় অবস্থিত আকিজ জুট মিলে এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে চাকরি হয়েছে শাহিদার।
যশোর জেলা পুলিশ সমাবেশ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপলক্ষে ২২ মার্চ দুই দিনের সফরে যশোর যান পুনাক সভানেত্রী। এ সফরেরই আজ (২৩ মার্চ ২০২২) ঝিকরগাছার শিমুলিয়া গ্রামে এক অনুষ্ঠানে শাহিদার হাতে চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেন পুনাক সভানেত্রী জীশান মীর্জা।
এর আগে পুনাক সভানেত্রী শাহিদার পরিচালিত সৃষ্টিশীল নারী প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার শিশুদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি পরম মমতায় প্রতিবন্ধী শিশুদের আদর করেন, তাদের খোঁজ খবর নেন। তিনি শিশুদের হাতে চকলেট, নতুন পোশাক ও বিভিন্ন উপহার তুলে দেন পুনাক সভানেত্রী।
শুধু নিজের প্রতিবন্ধকতা জয় করেই থেমে যাননি শাহিদা। অন্য প্রতিবন্ধীদের জন্যও এগিয়ে এসেছেন তিনি। বাড়ির পাশে গড়ে তুলেছেন এই সৃষ্টিশীল নারী প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থা। সেখানে প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষা আর নারীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন তিনি।
নিয়োগপত্র পেয়ে খুশিতে আত্মহারা শাহিদা খাতুন। তিনি বলেন, ‘অবশেষে আমার একটা কর্মসংস্থান হলো। পড়াশোনা শেষ করেও চাকরি না হওয়ায় আমি খুব দুঃশ্চিন্তায় ছিলাম। পুনাক সভানেত্রীর কল্যাণে আমার একটা চাকরি হলো। এখন আমার মা-বাবার পাশে দাঁড়াতে পারব।’
পুনাক সভানেত্রী জীশান মীর্জা বলেন, ‘বিভিন্ন গণমাধ্যমে শাহিদাকে নিয়ে সংবাদ পড়েছি। তার প্রতিবন্ধিতাকে জয় করে অনন্য নজির স্থাপন করা আমাদের কাছে খুব ভালো লেগেছে। তা ছাড়া প্রতিষ্ঠার পর থেকেই পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি নিয়মিত কার্যক্রমের পাশাপাশি অসহায় ও দুস্থদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে। সেই ধারাবাহিকতায় শাহিদার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে পুনাক। শাহিদার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হওয়ায় পরিবারটি এখন ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.